চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দিনাজপুরে যৌতুকবিহীন গণবিয়ে

দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল এর উপস্থিতিতে বীরগঞ্জে কুড়ি (২০) জোড়া এতিম, দুস্থ ও অসহায় তরুণ-তরুণীর যৌতুকবিহীন বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। শুধু যৌতুকবিহীনই নয়, বরং নব দম্পতিদেরকে দেয়া হয়েছে নতুন পরিবার পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীও।

যৌতুকের কু-প্রভাব এবং ধর্মীয়ভাবে যৌতুক দেয়া-নেয়ার নিষেধাজ্ঞা প্রতিটি ঘরে ঘরে সকলের মাঝে ছড়িয়ে দিতে এমন আয়োজন বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টায় দিনাজপুরের বীরগঞ্জের বটতলী ফয়জিয়া মদিনাতুল উলম মাদ্রাসা মাঠ প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ও ইসলাহুল মুসলিমীন পরিষদ বাংলাদেশের চেয়ারম্যান আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদের তত্ত্বাবধানে দিনাজপুর প্রতিনিধি মাওলানা আইয়ুব আলী আনসারীর সভাপতিত্বে এই বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়।

বিজ্ঞাপন

এসময় উৎসুক জনতার ঢল নামে।  অনুষ্ঠানে বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইয়ামিন হোসেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা এস.এম.এ খালেক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মো. নুর ইসলাম নুর ও যুগ্ম সাধারন সম্পাদক শামিম আলম ফিরোজ, সাতোর ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করিম শেখ, জেলা পরিষদ সদস্য আতাউর রহমান বাবু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আয়শা আক্তার বৃষ্টি সহস্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গও উপস্থিত ছিলেন।

কুড়ি জোড়া তরুণ-তরুণীকে বর ও কনে সাজিয়ে আনা হলে প্রধান অতিথি দিনাজপুর-১ আসনের স্থানীয় এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল এসময় ২০ জন কনেকে বিয়ের শাড়ি প্রদান করেন। একইসাথে আয়োজকগণ দাম্পত্য জীবনে সুখ ও সমৃদ্ধি কামনায় তাদের জন্য দোয়া কামনা করে নব দম্পতিদের হাতে সেলাই মেশিন, ছাগল, লেপ-তোশক, হাড়ি-পাতিলসহ রান্নাঘরের প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র তাদের হাতে তুলে দেয়।

এ সময় মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি বলেন, যৌতুক একটি সামাজিক ব্যাধি। আর এই ব্যাধি দুর করার জন্য সরকার প্রাণপন চেষ্টা করে যাচ্ছে। সরকারের পাশাপাশি সকলে যৌতুকের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ালে সামাজিক অবক্ষয়ের হাত থেকে মুক্ত হবে সমাজ। যৌতুক দেয়া কিংবা নেয়া ধর্মীয়ভাবেও নিষিদ্ধ। এই ধরনের বিয়ে সেই বার্তায় পৌছে দেবে প্রতিটি ঘরে ঘরে। তিনি নতুন বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ তরুণ-তরুণীদের সামাজিক জীবনে সর্বত্র সাফল্য কামনা করে যৌতুকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান। তিনি মনে করেন, এ জাতীয় উদ্যোগে আমাদের সমাজ সুন্দরের পথে হাঁটবে, সমাজ কুসংস্কারমুক্ত হবে।

শেয়ার করুন: