চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দশ নাগরিককে হত্যার হুমকির পর তদন্তে পুলিশ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, অধ্যাপক মুহাম্মদ
জাফর ইকবালসহ দশজন বিশিষ্ট নাগরিককে হত্যার হুমকি দিয়ে চিঠি পাঠিয়েছে আল-কায়েদা এ বাংলা টিম; ১৩ নামের একটি জঙ্গি সংগঠন।

আল-কায়েদা এ বাংলা টিম; ১৩ গ্রুপের পাঠানো চিঠিতে লেখা রয়েছে ‘মাস্ট উইল প্রিপেয়ার ফর
ডেড’। তারপর ধারাবাহিকভাবে ১০ বিশিষ্ট ব্যক্তির নাম রয়েছে এবং প্রত্যেকের
নামের সঙ্গে কিছু লেখা রয়েছে।

এই ঘটনার পর স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, বিষয়টি সরকার গুরুত্বের সাথে দেখছে। হুমকি পাওয়া ১০ বিশিষ্ট নাগরিকদের নিরাপত্তা দেওয়া হবে। তবে ব্লগারদের হত্যার সঙ্গে এই বিষয়টির মিল নেই বলেই মনে হচ্ছে।

যে দশজনকে হুমকি দেয়া হয়েছে তারা
হলেন, ঢাবি’র উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, নাট্য ব্যক্তিত্ব তারানা হালিম,
জগন্নাথ হলের প্রভোস্ট ড. অসীম সরকার, ডা. ইমরান এইচ সরকার, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক কাবেরী গায়েন, বিকাশ শাহা, সরকার দলীয় এমপি ইকবালুর
রহিম, পলন সুতার এবং অধ্যাপক মুহাম্মদ জাফর ইকবাল।

হুমকি পাওয়ার পর শাহবাগ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন ড. অসীম সরকার।

এতে তিনি উল্লেখ করেন, এমন হুমকির মুখে নিজের এবং পরিবারের সদস্যরা নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে রয়েছে।

শাহবাগ থানার উপ-পরির্দশক শাফিয়ার রহমানকে বিষয়টির তদন্ত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তিনি চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, এর পেছনে কারা আছে বা কোথায় থেকে হুমকিটা এসেছে এসব বিষয় আমরা খতিয়ে দেখছি।

শাফিয়ার জানান, ইতিমধ্যে হুমকি দিয়ে পাঠানো চিঠির মূল কপি চাওয়া হয়েছে।

আল-কায়েদা এ বাংলা টিমের হুমকি
দিয়ে পাঠানো চিঠি সর্ম্পকে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার চ্যানেল
আই অনলাইনকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাছে হুমকির বিষয়টি শুনতে
পেয়েছি। আমার ক্ষেত্রে এমন ঘটনা এই প্রথম না, ২০১৩ সালের পর থেকে আমি
নানাভাবে এমন হুমকি পেয়ে আসছি।

তিনি বলেন, সমাজে রাষ্ট্রের মধ্যে
যদি নিরাপত্তা ব্যবস্থা হুমকির মধ্যে পড়ে যায়, তাহলে এটা সবার জন্যই হুমকি।
এখন শঙ্কার বিষয় হলো, নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ে কিনা! যে হারে
ব্লগারদের হত্যা করা হচ্ছে এবং তাদের বিচার হচ্ছে না তা উদ্বেগের বিষয়।

শেয়ার করুন: