চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ
Partex Group

তিন পাণ্ডবের ঢাকা হারল সিলেটের কাছে

বিজ্ঞাপন

বিপিএলে প্রথম জয়ের দেখা পেয়েছে সিলেট সানরাইজার্স। মঙ্গলবার দুপুরের ম্যাচে মিনিস্টার ঢাকাকে ৭ উইকেটে হারায় দলটি। এনামুল হক বিজয়ের ব্যাটে ১০১ রানের ছোট লক্ষ্যে সহজেই পৌঁছায় সিলেট।

১৭ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে জয় নিশ্চিত করে সিলেট। ওপেনার বিজয় ৪৫ বলে করেন ৪৫ রান। মারেন চারটি চার ও একটি ছয়। কলিন ইনগ্রাম একটি করে চার-ছক্কায় ১৯ বলে ২১ রানে অপরাজিত থাকেন।

pap-punno

টানা দুই হারের পর সোমবার প্রথম জয়ের মুখ দেখেছিল ঢাকা। পরদিনই আবার হারের স্বাদ পেল।

অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, ওপেনার তামিম ইকবাল নিয়মিতই খেলছেন। মঙ্গলবার মিনিস্টার ঢাকার একাদশে প্রথমবার খেলতে নামেন মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা।

১৩ মাস পর ম্যাচ খেলতে নেমে বোলিং খারাপ করেননি। তবে প্রতিপক্ষকে চ্যালেঞ্জ জানানোর মতো পুঁজি পায়নি তার দল। ৪ ওভারে ২১ রান খরচায় ২টি উইকেট নেন মাশরাফী। সিলেটের ইনিংসের প্রথম ও শেষ আঘাতটি টাইগার পেসার।

নিজের দ্বিতীয় ওভারের পঞ্চম বলে ক্যারিবিয়ান ওপেনার লেন্ডল সিমন্সকে রুবেল হোসেনের ক্যাচ বানান। সিলেটের সংগ্রহ তখন ২১ রান। ঢাকা যখন দ্বিতীয় সাফল্য পায় দলটির সংগ্রহ ৫৯ রান।

জয়ের ভিত গড়ে দিয়ে ১৭ রানে ফেরেন মিঠুন। হাসান মুরাদের বলে তামিমকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। ১৫ বলের ইনিংসে মারেন তিনটি চার। জয় থেকে ২ রান দূরে বিজয় বড় শট খেলতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দেন মাশরাফীর বলে।

টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নামা ঢাকা ৯ রানের মাথায় ওপেনার মোহাম্মদ শেহজাদের উইকেট হারায়। সোহাগ গাজীর বলে ডাউন দ্য উইকেট খেলতে গিয়ে ৫ রান করা আফগান স্টাম্পিংয়ের ফাঁদে পড়েন।

Bkash May Banner

প্রথম দুই ম্যাচে ফিফটি পাওয়া তামিম ইকবাল গত ম্যাচে বরিশালের বিপক্ষে রান পাননি। এদিন তার ব্যাট থেকে এসেছে কেবল ৩ রান। সিলেট অধিনায়ক মোসাদ্দেক হোসেনের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন তিনি।

জহুরুল ইসলাম ৪ রান করে সোহাগের বলে মিঠুনের তালুবন্দি হন। আরও বেশি চাপে পড়ে যায় ঢাকা। স্কোরবোর্ড হয়ে যায় ৩ উইকেটে ১৭।

চতুর্থ উইকেটে ওপেনার নাঈম শেখকে নিয়ে শুরুর চাপ সামলানোর চেষ্টা করেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। টাইগারদের টি-টুয়েন্টি অধিনায়ক রানের গতি বাড়ানোর চেষ্টায় নাঈম ছিলেন একেবারেই বিপরীত। অতি-রক্ষণাত্মক ব্যাটিং করে দলকে অস্বস্তিতে রাখেন।

এই জুটি ৪০ রানে যাওয়ার পর নাজমুল ইসলাম অপুর বলে রিভার্স সুইপ খেলতে গেলে এলবিডব্লিউ হন নাঈম। সাজঘরে ফেরেন ৩০ বলে ১৫ রানের মন্থর ইনিংস খেলে।

খানিক পর ক্যারিবীয় তারকা আন্দ্রে রাসেল ফিরে যান। কোনো রান না করেই। অপুর বলে এলবিডব্লিউয়ে কাটা পড়েন। আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে রাসেল ছিলেন অসন্তুষ্ট। তার আউট নিয়ে রিয়াদকেও আম্পায়ারের সঙ্গে কথা বলতে দেখা যায়। পরে দেখা গেছে বল আগে রাসেলের ব্যাটে লেগেছিল। ২৬ বলে ৩৩ রান করা রিয়াদকে সাজঘরে পাঠান অপু। প্যাডেল সুইপ খেলতে গিয়ে ফাইন লেগে তাসকিনের ক্যাচ হন।

৬৮ রানে ৬ উইকেট পড়ার পর ক্রিজে আসেন চোটের কারণে প্রথম তিন ম্যাচ খেলতে না পারা মাশরাফী। দুই রানের বেশি অবশ্য করতে পারেননি। তাসকিনের বলে পয়েন্টে তালুবন্দি হন সানজামুল ইসলামের। হাল ধরার চেষ্টা করা শুভাগত হোম ১৬ বলে ২ চার ও এক ছক্কায় ২১ রান করে থামেন, লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন। অপুর চতুর্থ শিকারে পরিণত হন।

তাসকিনের বলে উদানা আউট হলে একশ রানের আগেই গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় পড়ে ঢাকা। রুবেল অবশ্য সেটি হতে নেননি। ৬ বলে এক চার ও এক ছয়ে ১২ রান করে তাসকিনের শিকার হন, তার আগে ১৮.৪ ওভারে ঠিক ১০০ রানে পৌঁছে দেন দলকে। ঢাকা অলআউট ওই রানেই।

সিলেটে সবচেয়ে সফল নাজমুল অপু, ৪ ওভারে এক মেডেনে ১৮ রানে নেন ৪ উইকেট। তাসকিন ২২ রানে নেন ৩ উইকেট। সোহাগ গাজী ২টি ও মোসাদ্দেকের পকেটে গেছে একটি উইকেট।

বিজ্ঞাপন

Bellow Post-Green View
Bkash May offer