চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

তাইজুলের ৫ উইকেটে চালকের আসনে টাইগাররা

প্রথম সেশনের ধারাবাহিকতা পরের সেশনেও ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। মধ্যাহ্ন বিরতির পর এনেছে আরও বড় সাফল্য। পথের কাঁটা হয়ে ওঠা সেঞ্চুরিয়ান আবিদ আলিকে সাজঘরে পাঠানোর কাজটা করেছেন তাইজুল। ফিরিয়েছেন হাসান আলিকেও।

তাইজুলের যেটি পঞ্চম উইকেট। টেস্টে অষ্টমবার ইনিংসে ৫ উইকেট তার। তার আগে ইবাদত হোসেন এলবিডব্লিউয়ে ফিরিয়ে দিয়েছেন মোহাম্মদ রিজওয়ানকে। আবিদ ১৩৩ ও রিজওয়ান ৫ রান করে আউট হন।

তৃতীয় দিনের সকাল থেকেই অবশ্য দারুণ বল করছে স্বাগতিকরা। তাইজুল ইসলামের জোড়া শিকারের পর মেহেদী হাসান মিরাজের আঘাত স্বস্তি এনে দেয় লাঞ্চের আগেই।

পথের কাঁটা হয়ে টিকে ছিলেন আবিদ। ২০৯ বলে তিন অঙ্কে পৌঁছান তিনি। ফিফটি ছুঁয়েছিলেন ৮৪ বলে। শেষপর্যন্ত ২৮২ বলের ইনিংসটি থামে ১৩৩ রানে, ১২ চারের পিঠে যাতে ২ ছয়ের মার।

তৃতীয় দিনের লাঞ্চ বিরতি পর্যন্ত প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানের সংগ্রহ ছিল ৪ উইকেটে ২০৩ রান। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সেটি ৭ উইকেটে ২২৯ রানে পৌঁছে গেছে।

বিজ্ঞাপন

চালকের আসনে থাকা বাংলাদেশ এখনও এগিয়ে ১০১ রানে।

আগে ১০ রান করে মিরাজের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন অধিনায়ক বাবর আজম। স্বাগতিক অফস্পিনার দারুণ এক ডেলিভারিতে বোকা বানিয়ে বোল্ড করেন তাকে।

পরে তাইজুল পান তৃতীয় শিকারের দেখা। ফাওয়াদ আলমকে উইকেটের পেছনে লিটন দাসের ক্যাচে পরিণত করেন টাইগারদের বাঁহাতি স্পিনার।

চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় দিনের দুই সেশনে উইকেট তুলতে না পারার গেরো রোববার সকালে টপাটপ দুই উইকেট তুলে কাটান তাইজুল। জোড়া সাফল্যে নতুন দিনের সূচনা করে দেন বাংলাদেশকে।

জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে আব্দুল্লাহ শফিককে এলবিডব্লিউ করে প্রথম শিকার ধরেন তাইজুল। ৫২ রানে ফিরেছেন পাকিস্তান ওপেনার। পরের বলেই আজহার আলিকে রানের খাতা খুলতে দেননি টাইগার স্পিনার, হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগিয়ে এলবিডব্লিউ করেন আজহারকে।

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ৩৩০ রান করে অলআউট হয়। লিটন দাস ১১৪ ও মুশফিকুর রহিম ৯১ রান করেন। হাসান আলি নেন ৫ উইকেট।

বিজ্ঞাপন