চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

তদন্ত বিরুদ্ধে গেলে আত্মসমর্পণ করবেন অ্যাসাঞ্জ

উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ বলেছেন, ইকুয়েডর দূতাবাসে তার অবরোধের বিরুদ্ধে করা মামলায় জাতিসংঘের তদন্তের ফলাফল বিরুদ্ধে গেলে তিনি শুক্রবার ব্রিটিশ পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করবেন।

২০১২ সালের জুনে অ্যাসাঞ্জকে সুইডেন থেকে লন্ডনে ইকুয়েডর দূতাবাসে পাঠানো হয়। দূতাবাসে আশ্রয় নেয়ার পর থেকে সেখানেই এখন পর্যন্ত অবরুদ্ধ আছেন তিনি।

অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে কোনো নির্দিষ্ট অভিযোগে মামলা দায়ের না হলেও দুই নারী তার বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ আনলে সুইডেনে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নেয়া হয়। এবং এর পর কোনো আনুষ্ঠানিক অভিযোগ ছাড়াই তাকে ইকুয়েডর দূতাবাসে আটকে রাখা হয়।

তাই বিনা বিচারে আটক নিয়ে কাজ করা জাতিসংঘের একটি দল অ্যাসাঞ্জের বন্দিত্বের বিষয়টি তদন্ত করে শুক্রবার স্থানীয় সময় সকালে ফলাফল প্রকাশ করবে।

Advertisement

জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের এই আটকাবস্থা বিচার বহির্ভূত এবং বেআইনী, জাতিসংঘের এই ফলাফল বা সিদ্ধান্ত অ্যাসাঞ্জের জন্য তা প্রমাণের শেষ রাস্তা।

এর প্রেক্ষিতেই উইকিলিকসের টুইটার অ্যাকাউন্টে পোস্ট করা এক বিবৃতিতে অ্যাসাঞ্জ বলেন, ‘জাতিসংঘের অনুসন্ধানে যদি প্রমাণ হয় ইকুয়েডর দূতাবাসে আমাকে সাড়ে তিন বছর আটকে রাখা অবৈধ নয়, এবং আমি যুক্তরাজ্য ও সুইডেনের বিরুদ্ধে মামলায় হেরে যাই, তবে শুক্রবার দুপুরেই আমি দূতাবাস থেকে বেরিয়ে যাবো।’

‘ব্রিটিশ পুলিশের হাতে স্বেচ্ছায় ধরা দেবো কারণ সেখানে আর আপিল করার কোনো মানে থাকবে না।’

‘কিন্তু যদি আমি জিতি এবং সরকারপক্ষের পদক্ষেপ বেআইনী প্রমাণিত হয়, তখন আমি চাইবো তাৎক্ষণিকভাবে আমার পাসপোর্ট ফিরিয়ে দেয়া হোক এবং ভবিষ্যতে আমাকে গ্রেফতার করার সব প্রচেষ্টা স্থগিত করা হোক,’ বলেন অ্যাসাঞ্জ।