চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

তথ্য ফাঁসের ঘটনায় মামলা করার অনুমতি পেয়েছে ফেসবুক

অনুমতি ছাড়া লক্ষ লক্ষ ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁসের ঘটনায় মামলা করার প্রাথমিক অনুমতি পেয়েছে ফেসবুক ইনক। বুধবার ফেডারেল আদালতের এক রায়ে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে,যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় রাজ্যে ফেসবুক ব্যবহারকারীরা এই মাধ্যমটির বিরুদ্ধে বায়োমেট্রিক তথ্য গোপনীয়তা আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ এনেছিল। তার প্রেক্ষিতে জুলাই মাসে সামাজিক যোগাযোগের এই মাধ্যমটি মামলাটির জন্য ১০০ মিলিয়ন এবং পরে বাড়িয়ে ৬৫০ মিলিয়ন ডলার অফার করেছিল।

বিজ্ঞাপন

তথ্যপ্রযুক্তি নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান ন্যাকেড সিকিউরিট দাবি করেছে, ফেসবুক থেকে ফাঁস হওয়া ৩০ কোটি ৯০ লাখ ব্যবহারকারীর ফোন নম্বর অনলাইনে ফাঁস হয়ে গেছে।

আরেক সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান সাইবেল ও সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ বব ডিয়াচেঙ্কো একই রকম প্রতিবেদন দিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাইবলে সম্প্রতি ডার্ক ওয়েবে বিক্রির জন্য উন্মুক্ত ২৬ কোটি ৭০ লাখ ফেসবুক প্রোফাইলের ডেটাবেইসের সন্ধান পায়। সাইবেল মাত্র ৫৪০ মার্কিন ডলারে তথ্য যাচাইয়ের জন্য তা কিনে নেয়। ওই রেকর্ডে ফেসবুকের ইউজার আইডি, ইমেইল ঠিকানা, পূর্ণ নাম, ফোন নম্বর, বয়স, রিলেশনশিপ স্ট্যাটাস প্রভৃতি তথ্য ছিল। ওই ডেটাবেইস এর আগে পোস্ট করা হয়েছিল। তখন তা দেখেছিলেন সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ বব ডিয়াচেঙ্কো।

তবে তারপর তা সরিয়ে নেওয়া হয়। পরে এতে আরও চার কোটি ২০ লাখ তথ্য যুক্ত করা হয়। পরে ওই রেকর্ডগুলো অজানা কেউ ধবংস করে ফেলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার বিচারক জেমস ডোনাতো জানিয়েছে, সুষ্ঠ তদন্তের জন্য ফেসবুকের তথ্য ফাঁসের ঘটনায় এখন মামলা দায়ের করতে পারবে।

গত বছরের ডিসেম্বরে ফেসবুক থেকে ২৬ কোটি ৭০ লাখ ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁস হয়ে যায়। এর আগে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারিতে ফেঁসেছিল প্রতিষ্ঠানটি।