চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ডাকাতের কবলে পড়ে ফরিদপুরে বাস দুর্ঘটনায় ২৫ জন নিহত

ফরিদপুরে এক ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় ২৫ জন নিহত হয়েছে, আহত হয়েছে ১৭ জন। চালকের দাবী ডাকাতরা বাসে
উঠে বাসের নিয়ন্ত্রণ নিলে এই দুর্ঘটনা ঘটে। আর যাত্রীদের দাবী চালকের ঘুমিয়ে পড়াই
এই দুর্ঘটনা কারণ। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার কৈজুরী সদরদি এলাকায় এই দুর্ঘটনায়  ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ১৯ আরোহীর।

 বুধবার রাত ৯টায় পটুয়াখালির কুয়াকাটার উদ্দেশ্যে রাজধানীর গাবতলী ছেড়ে যাওয়া সোনার তরী পরিবহনের বাসটি রাত ১টার দিকে ফরিদপুরের ভাঙ্গার পূর্ব সদরদি এলাকা দিয়ে যাচ্ছিলো। হঠাৎ  নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যাত্রীবাহী বাসটি গাছের সঙ্গে  ধাক্কা লেগে দুমড়ে মুচড়ে যায়।

 বাস চালককে বরিশাল
মেডিকেল কলেজে নেয়া হয়েছে। আহতদের ভাঙ্গা স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে হাসপাতালে আরো ৪ জনের মৃত্যু হয়। আহতদের বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। বাসটির বেশির ভাগ যাত্রীই ছিলেন পটুয়াখালীর।

যাত্রীদের দাবি, চালকের ঘুমিয়ে পড়াই দুর্ঘটনার কারণ। দুর্ঘটনার সময় বাসের বেশিরভাগ যাত্রী ঘুমিয়ে ছিলেন।

 আহত যাত্রীদের
মধ্যে কেউ কেউ বলেন,‘বাসে ঘুমিয়ে ছিলাম।হঠাৎ ঝাঁকুনি খেয়ে ঘুম ভেঙ্গে গেলে দেখি
আমার ওপর অনেকে পড়ে আছে।’

Advertisement

স্থানীয়রা বলেন
রাতে অনেক জোড়ে গাড়ির ব্রেকফেলের শব্দ পেলে তারা ঘটনা স্থলে দৌঁড়ে যায়। বাসের ভিতর
ঢুকে অনেককেই মৃত অবস্থায় পায় তারা।

নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ১০ হাজার টাকা এবং আহতদের চিকিৎসা খরচ বহনের ঘোষণা দিয়েছে ফরিদপুর জেলা প্রশাসন। দুর্ঘটনা তদন্তে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আব্দুর রশীদকে প্রধান করে ৩ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। হেলপার বলেছেন,ডাকতেরা আগে থেকেই টিকিট কেটে উঠে পড়েছিলেন।