চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

টার্নার তাণ্ডবে রেকর্ড গড়ে সমতায় অস্ট্রেলিয়া

হ্যান্ডসকম্বের সেঞ্চুরি, খাজার আফসোস!

শুরুটা করেছিলেন উসমান খাজা, গত ম্যাচের সেঞ্চুরির জায়গা থেকেই যেন এগোলেন, তাতে ভিত গড়লেন। মাঝে সেঞ্চুরি করে পিটার হ্যান্ডসকম্ব রাখলেন পথ আগলে। শেষে অ্যাস্টন টার্নারের তাণ্ডব। ভারতকে ৪ উইকেটে হারিয়ে রেকর্ডের পাতা ওলটপালট করার সাথে সিরিজে সমতা ফিরিয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

মোহালিতে রানোৎসব করে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-২এ সমতা এনেছে অজিরা। বুধবার দিল্লিতে হবে সিরিজ ফয়সালা।

বিজ্ঞাপন

সিরিজের চতুর্থ ওয়ানডেতে শুরুতে ব্যাট করে ৯ উইকেটে ৩৫৮ রানের বিশাল সংগ্রহই গড়ে ভারত। জবাব দিতে নেমে ১৩ বল আর ৪ উইকেট অক্ষত রেখেই জয়ে নোঙর ফেলে অ্যারন ফিঞ্চের অস্ট্রেলিয়া।

ওয়ানডেতে যেটি পঞ্চম সর্বোচ্চ রানতাড়ার রেকর্ড। আর অস্ট্রেলিয়ার সর্বোচ্চ। ২০১১ সালে সিডনিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৩৩ রান তাড়া করে জয়ই ছিল অজিদের এতদিনের রেকর্ড।

ভারতের বিপক্ষে সর্বোচ্চ রানতাড়া করে জয়ের রেকর্ডও এখন এটি। আগে শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তান ৩২১ রান তাড়া করে ভারতের বিপক্ষে জিতেছিল। অস্ট্রেলিয়া সেটি টেনে নিল আড়াইশর ওপারে।

রোববার টস জিতে ব্যাটিংয়ে এসে অজিদের আগের ম্যাচের ওপেনিং জুটির শোধ তোলে ভারত, উদ্বোধনীতে ঠিক ১৯৩ রান যোগ করে। শেখর ধাওয়ান ও রোহিত শর্মা দুজনেই এগোচ্ছিলেন শতকের দিকে। তবে রোহিতকে ৫ রানের জন্য আক্ষেপে পুড়তে হয়। ৯২ বলে ৭ চার ও ২ ছক্কায় ৯৫ রানে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

ধাওয়ান থামেন দেড়শর কাছে যেয়ে। তুলে নেন ক্যারিয়ারের ১৬তম সেঞ্চুরি। ১১৫ বলে ১৪৩ রানের ইনিংস তার, সাজানো ৩ ছয় ও ১৮ চারে।

পরে রিশভ পান্ট ৩৬ ও শংকরের ২৬ রানে সাড়ে তিনশ পেরিয়ে যায় ভারত।

প্যাট কামিন্স ১০ ওভারে ৭০ রানে ৫ উইকেট নেন। রিচার্ডসন নেস ৩ উইকেট, ৯ ওভারে খরচ করেন ৮৫ রান।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে শূন্য রানে অধিনায়ক ফিঞ্চকে হারায় অস্ট্রেলিয়া। শন মার্শও (৬) দ্রুতই ফেরেন। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি পাওয়া খাজা ও হ্যান্ডসকম সেখান থেকে লড়াই এগিয়ে নেন। দুজনে যোগ করেন ১৯২ রান।

খাজার টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি পাওয়া হয়নি। তবে ৭ চারে ৯৯ বলে ৯১ রানের ইনিংসে দলকে ভিত্তি দিয়ে যান।

গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের কাছে ঝড়ের আশা ছিল, ১৩ বলে ২৩ রানেই থামে সেটি। হ্যান্ডসকমও ক্যারিয়ারের প্রথম শতক তুলে ফিরে যান। তার ১০৫ বলে ১১৭ রানের ইনিংসটি ৮ চার ও ৩ ছক্কায় সাজানো।

পরের গল্পটুকু কেবল টার্নারের। স্বাগতিক বোলারদের ওপর টর্নেডো চালিয়ে ৪৩ বলে অপরাজিত ৮৪ রানের ইনিংস খেলেন ২৬ বছর বয়সী এই অজি। ইনিংসটি ৬ ছক্কা ও ৫ চারে গড়া, ম্যাচসেরা ইনিংস।

Bellow Post-Green View