চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

টানা দ্বিতীয় জয়ে অধিনায়কের সেঞ্চুরি-আক্ষেপ

দুই রানের জন্য সেঞ্চুরি পাননি আকবর

অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপের দ্বিতীয় ম্যাচেও সহজ জয় পেল বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে উড়িয়ে দেয়ার পর রোববার নেপালকে হারিয়েছে তারা। জুনিয়র টাইগারদের জয়টি ৬ উইকেটে।

তবে টানা দ্বিতীয় জয়ের ম্যাচে আক্ষেপ থাকল বাংলাদেশ অধিনায়ক আকবর আলির। মাত্র দুই রানের জন্য সেঞ্চুরি পূর্ণ করতে পারেননি তিনি। আউটও যে হননি, ছিলেন ৯৮ রানে অপরাজিত। আসলে প্রয়োজনীয় রান উঠে যাওয়ায় আকবরের করার জন্য রানই বাকি ছিল না!

বিজ্ঞাপন

কলম্বোর প্রেমাদাসায় টস জিতে নেপালকে আগে ব্যাটে পাঠায় বাংলাদেশ। পবন সরফ (৮১) ও সন্দীপ জোরার (৫৬) হাফসেঞ্চুরিতে ভর করে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৬১ রানের লড়াই করার পুঁজি পায় নেপালিরা। সরফ-সন্দীপ ছাড়া নেপালের হয়ে কুড়ির ঘর ছাড়ানোর ইনিংস খেলেন আরও তিনজন।

বাংলাদেশের হয়ে দুটি করে উইকেট নেন তানজিম হাসান সাকিব ও শাহীন আলম। এছাড়া একটি করে উইকেট নেন মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী, রকিবুল হাসান, তৌহিদ হৃদয় ও মিজানুর রহমান।

বিজ্ঞাপন

তবে বাংলাদেশের মিডল অর্ডারের ব্যাটিং ক্যারিশমায় সেই স্কোর শেষ পর্যন্ত মামুলি টার্গেট হয়ে যায়! চার বল বাকি থাকতে বাংলাদেশ জয় তুলে নেয় ছয় ব্যাটসম্যানকে হাতে রেখে।

যদিও ইনিংসের শুরু মোটেও শেষের মতো ‘রাজকীয়’ হয়নি বাংলাদেশের। দলীয় ১৯ রানেই দুই ওপেনার তানজিদ (৯) ও অনিক সরকারকে (৬) হারায় বাংলাদেশ।

‍এরপরই পাল্টা আঘাত শুরু করে যুবারা। তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৭৯ রান তোলেন মাহমুদুল হাসান জয় তৌহিদ হৃদয়। ৫৬ বলে ৪০ রান করে মাহমুদুল আউট হলেও হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করেন হৃদয়। অধিনায়ক আকবরের সঙ্গে ৩৪ রান যোগ করে তিনি ফেরেন ৬০ রানে।

হৃদয়কে ফেরার পর আর কাউকে আউট করতে পারেনি নেপাল। পঞ্চম উইকেট জুটিতে ১৩০ রান যোগ করে অবিচ্ছিন্ন থাকেন আকবর আলি ও শামীম হোসেন। ৪৫ বলে চার চারে ৪২ রান করেন শামীম।

তবে শামীমের চেয়ে অনেকবেশি আগ্রাসী ছিলেন অধিনায়ক। ৮২ বলে ১৪টি চারে ৯৮ রান তার নামের পাশে। হাতে বল এবং নিজে অপরাজিত থাকলেও আগেই প্রয়োজনীয় রান উঠে যাওয়ায় সেঞ্চুরি পূর্ণ হয়নি আকবরের। তাই দলের বড় জয়ে উচ্ছ্বাস থাকলেও মনের কোণে দুই রানের ‘আক্ষেপ’ একটু হলেও হয়তো থাকবে অধিনায়কের!

Bellow Post-Green View