চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

টাইব্রেকারে সুইস-গেট খুলে সেমিতে স্পেন

একের পর এক আক্রমণে সুইজারল্যান্ড রক্ষণকে ব্যতিব্যস্ত করে রাখল স্পেন। কিন্তু টলানো যাচ্ছিল না তাদের গোলরক্ষক ইয়ান সোমেরকে। দৃঢ় এক সুইস-গেট হয়ে উঠেছিলেন তিনি। টাইব্রেকারে গড়ানো ম্যাচে আবার স্প্যানিশ-গেট হয়ে উঠলেন গোলরক্ষক উনাই সিমোন। তাতে শেষ হাসি স্প্যানিশদেরই। সেমিফাইনালের টিকেট কেটেছে লুইস এনরিকের শিষ্যরা।

সেন্ট পিটার্সবার্গে ইউরোয় প্রথম কোয়ার্টারে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে নির্ধারিত ও অতিরিক্ত সময়ের খেলা ১-১ সমতায় থাকে স্পেনের। পরে টাইব্রেকারে ৩-১ ব্যবধানে জিতে সেরা চারের টিকেট কাটে বুসকেটস-সারাবিয়ারা। মঙ্গলবার সেমিতে ইতালির মুখোমুখি হবে স্পেন।

পেনাল্টি শুট আউটে অধিনায়ক সার্জিও বুসকেটসের শট বারে লাগার মধ্য দিয়ে বাজে শুরু হয় স্পেনের। সুইজারল্যান্ডের মারিও গাভরানোভিচ প্রথম শটে জালের দেখা পান। দ্বিতীয় শট জালে জড়ান স্প্যানিশদের ড্যানিয়েল ওলমো। দ্বিতীয় শটে এসে সুইসদের ফ্যাবিয়ান শাচেরের শট ঠেকিয়ে দেন স্পেন গোলরক্ষক উনাই সিমোন। স্পেনের রদ্রির নেয়া তৃতীয় শট ঠেকান গোলরক্ষক সোমের। সুইসদের তৃতীয় শটে ফের দেয়াল হন সিমোন।

স্পেনের চতুর্থ শটে জাল খুঁজে নেন জেরার্ড মরেনো। কিন্তু সুইজারল্যান্ডের চতুর্থ শটটি আর জালে নিতে পারেননি রুবেন ভার্গাস, বল উড়িয়ে পাঠান জালের অনেক উপর দিয়ে। স্প্যানিশদের পঞ্চম শটে মিকেল ওয়েরজাবাল জাল খুঁজে নিলে উল্লাসে মাতেন এনরিকে। বিমর্ষ হয়ে পড়া সুইসদের আর পঞ্চম শটটি নিতেই হয় না।

বিজ্ঞাপন

সেরা ষোলোয় বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সকে নির্ধারিত ও অতিরিক্ত সময়ে ৩-৩ গোলে রুখে, টাইব্রেকারে ৫-৪ ব্যবধানে জিতে কোয়ার্টারে এসেছিল সুইজারল্যান্ড। সেরা আটে ম্যাচের অষ্টম মিনিটেই পিছিয়ে পড়ে তারা। ডেনিশ জাকারিয়া নিজেদের জালে বল জড়ান তখন। জর্ডি আলবার বাতাসে ভাসানো বল বিপদমুক্ত করতে যেয়ে জাকারিয়ার জড়িয়ে দেন নিজ জালেই।

ম্যাচের ২৬ মিনিটে স্পেনের একটি ভালো সুযোগ নষ্ট করে দেন সুইস গোলরক্ষক সোমের। সেই শুরু। এরপর একের পর এক আক্রমণ ঠেকিয়ে স্পেনকে হতাশায় ডুবিয়েছেন তিনি।

মধ্যবিরতির পর ম্যাচের ৫৭ মিনিটে দারুণ সুযোগ হাতছাড়া করে সুইজারল্যান্ড। জাকারিয়ার সুযোগ হাতছাড়ার দুমিনিট পর সুভারের প্রচেষ্টায় দেয়াল হন সিমোন।

ম্যাচের ৬৮ মিনিটে সমতা ফেরানো গোলটি পায় সুইজারল্যান্ড। স্পেন রক্ষণের ভুলে বল পেয়ে রেমো ফ্রেউলের বাড়ানো বলে জাল খুঁজে নেন জার্দান শাকিরি। তার নয় মিনিট পর বড় ধাক্কা আসে সুইস ডাগআউটে। মরেনোকে বাজেভাবে ট্যাকল করে তখন লাল কার্ডে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন রেমো।

দশজন নিয়ে সমতায় নির্ধারিত সময় পার করে সুইজারল্যান্ড। খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। সেখানে প্রথম অর্ধে স্পেনের দুই হালি আক্রমণে সুইস-গেট হয়ে দাঁড়ান সোমের। পরের অর্ধে স্প্যানিশদের আরও অন্তত এক হালি ভালো সুযোগ নষ্ট করে দেন এ গোলরক্ষক।

বিজ্ঞাপন