চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জয় হোক: গানে গল্পে নারীর পুনর্জাগরণের উপাখ্যান

“রবে না এ শৃঙ্খল উচ্ছৃঙ্খলতার/বন্ধন কারাগার হবে হবে চুরমার, পার হবে রাধার গিরি মরু পারাবার– নির্যাতিত ধরা মধুর, সুন্দর প্রেমময় হোক, জয় হোক জয় হোক।”

নজরুলের এমন দাপুটে কথাগুলোর সাথে দৃশ্য গেঁথে কীভাবে মিউজিক্যাল ফিল্ম ‘জয় হোক’ নির্মাণ করছেন পিপলু আর খান, আর মডেল ও অভিনেত্রী বাঁধনই বা নিজেকে কতোটা মেলে ধরতে পেরেছেন, কিংবা বিরতি ভেঙে নিয়মিত হওয়া অর্ণবের সংগীতায়োজন, আর সুস্মিতা আনিসের কণ্ঠ শুনতে অপেক্ষায় ছিলেন শ্রোতা দর্শক।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

অবশেষে নতুন উদ্যোগের ‘জয় হোক’ সবার সামনে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর পূর্ণ করার ঠিক আগ মুহূর্তে। বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের চেতনাকে স্মরণ করে যে মিউজিক্যাল ফিল্মটি নির্মিত।

বান্দরবানের রিমাক্রিতে টানা দুই দিন হয়েছে মিউজিক্যাল ফিল্মটির শুটিং

গানটির ভিজ্যুয়াল নির্মাণের কিছু ছবি আগেই প্রকাশিত হলে আগ্রহ তৈরী হয় শ্রোতা দর্শকের। বিশেষ করে গানের মাধ্যমে সমকালীন নারীর পুনরুত্থানের গল্প তুলে ধরার প্রয়াসে যে রূপে আবির্ভূত হন অভিনেত্রী বাঁধন, তা ব্যাপক প্রশংসা পায়।

বিজ্ঞাপন

‘জয় হোক’ নারীর পুনরুত্থানের গল্প, তার পুনর্জাগরণের উপাখ্যান। যেখানে বাঁধন আবির্ভূত হন বিভিন্ন দেবীর রূপে। একজন হেরে যাওয়া নারী, যে জীবনে অনেক ধরনের দুর্ভোগের ভাগীদার হয়েছেন, সে কীভাবে অবাধ্যতাকেই তার অস্ত্র বানিয়ে জীবিত হয়ে উঠে, সে গল্পই বলে এই গানটি। গানটি বলে এক হেরে যাওয়া মানবসভ্যতার গল্প।

সারা জীবন সাম্যের কথা বলেছেন নজরুল, মুক্তির কথা বলে গেছেন। নজরুল সামগ্রিক মুক্তির কথা বলে গেলেও মিউজিক্যাল ফিল্মে নারী মুক্তির কথাই প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। বঞ্চনা, চাপা ক্ষোভ, আর্তনাদ, কষ্ট, ভয় আর নিপীড়নের কথা দৃশ্যে দৃশ্যে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

বুধবার (২৪ মার্চ) রাতে গানটি রিলিজ হয়েছে সুস্মিতা আনিসের ইউটিউব চ্যানেল এবং অন্যান্য ডিজিটাল প্লাটফর্মে। যা প্রকাশের পর সব শ্রেণির দর্শকের কাছে সমাদৃত হচ্ছে। অনেকে গানটির নতুন আয়োজনের পাশাপাশি নির্মাণের প্রশংসা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করছেন।

গানটি প্রসঙ্গে কণ্ঠশিল্পী সুস্মিতা আনিস বলেন, এই মিউজিক্যাল ফিল্মটি তুলে ধরেছে নারীদের প্রতিদিনের সংগ্রামের চিত্র এবং তাদের রুখে দাঁড়ানোর উদ্দীপনাকে। নজরুল নিয়মভঙ্গের বুননকে শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিলেন এবং স্বাভাবিকভাবেই এই গানটিতেও উনার অবাধ্য চেতনা প্রকাশ পেয়েছে।

তিনি বলেন, এই গানে আশা করা হয়েছে শান্তির, সাম্যের এবং সত্যের জয়ের। অত্যাচার, অসমতা, অশান্তি, জরা এবং মিথ্যার শেকল ভেঙ্গে বেড়িয়ে আসার উৎসাহ যোগায় এই গান।