চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জোরপূর্বক স্কুল খুলে দিতে চান ট্রাম্প

আসন্ন নির্বাচনে প্রচারণার স্বার্থে জোরপূর্বক যুক্তরাষ্ট্রের স্কুল খুলে দিতে বদ্ধপরিকর প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। স্কুল খুলে দেওয়ার জন্য এক প্রকার হুমকিও দিয়েছেন তিনি।

করোনাভাইরাস মহামারীর সংক্রমণ ঠেকানোর জন্য মূলত বন্ধ রয়েছে স্কুলগুলো। শিক্ষার্থীদের নিরাপদে রাখার জন্যই স্বাস্থ্য বিভাগ কর্তৃক এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু ট্রাম্প এই বিষয়ে আর সময় নিতে চান না। এবার খুলে দিতে চান স্কুলগুলো।

বিজ্ঞাপন

এক টুইট বার্তায় তিনি বলেছেন, শিক্ষার্থীদের ক্লাসরুমে ফিরিয়ে আনার জন্য চাপ দিতে হবে। স্কুলগুলো অবশ্যই উন্মুক্ত হওয়া উচিত। যেসব স্কুল খুলতে অস্বীকৃতি জানাবে, তাদেরকে অর্থ প্রদানও বন্ধ করার হুমকি দিয়েছেন ট্রাম্প।

বিজ্ঞাপন

টুইট বার্তায় তিনি বলেন, স্কুলগুলো চালু করা পরিবারও শিশুদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তিনি অভিযোগ করে বলেন, মূলত ডেমোক্র্যাটরা রাজনৈতিক কারণে স্কুল বন্ধ রাখতে চায়।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, শহরতলিতে নির্বাচনী প্রচারণার জন্য তিনি স্কুলগুলো উন্মুক্ত করে দিতে চান। স্কুলগুলো খোলা হলে শিশুদের সাথে তাদের অভিভাবকরা আসেন, বিশেষ করে নারীরা। সেক্ষেত্রে নির্বাচনী প্রচারণা চালানো সহজ হয়ে যায় তার।

বিজ্ঞাপন

প্রতিবেদন আরও বলা হয়েছে, শহরতলির মাত্র ৩৬ শতাংশ ভোটার ট্রাম্পের সমর্থক থাকলেও ৫৯ শতাংশই বিপক্ষে। আর ১০ জনের মধ্যে মাত্র ৩ জন নারী পক্ষে ও ১০ জনের মধ্যে মাত্র ৪ জন পুরুষ ট্রাম্পের পক্ষে আছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের অনেক বিশেষজ্ঞ ট্রাম্পের স্কুল খুলে দেওয়ার নির্দেশের সমালোচনা করে বলেছেন, ট্রাম্প দেশের স্কুলগুলো পুনরায় চালু করার রাজনীতি করছেন। কারণ তিনি বিশ্বাস করেন যে, এটি তার প্রচারণার জন্য সহজ হবে।

৩৯ বছর বয়সী চিকিৎসক শ্যানন কে আলস্প বলেছেন, দিন শেষে আমরা বাবা-মা সবাই চাই আমাদের পরিবার নিরাপদে থাকুক। প্রশ্ন হচ্ছে, আমরা কি আমাদের স্কুলগুলো খুলতে পারি এবং সেগুলো নিরাপদ রাখতে পারি? আমি চাই যে, সিদ্ধান্তটি গবেষণা এবং বিজ্ঞানের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হোক। প্রেসিডেন্টের এই আহ্বানের ওপর আস্থা রাখতে পারি না।

তবে ট্রাম্পের মুখপাত্র রিক গোরকা বলছেন, স্কুলগুলো পুনরায় চালু হওয়া অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের একটা প্রক্রিয়া। এটা যেমন শিশুদের পড়ালেখাকে চাঙ্গা করবে তেমনি অর্থনৈতির জন্য ভালো হবে।

করোনাভাইরাসের শীর্ষ দেশ যুক্তরাষ্ট্র। বিশ্বের সর্বোচ্চ করোনা রোগী এখানে বিশ্বের এই পরাশক্তির দেশে। এরই মধ্যে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা প্রায় ৩৪ লক্ষ্যের কাছাকাছি।মারা গেছে ১ লাখ ৩৭ হাজার মানুষ।