চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জৈব বর্জ্য থেকে হোম কম্পোস্টিং

হোম কম্পোস্টিং জিরো ওয়েস্ট ব্যবস্থাপনার অন্যতম স্তম্ভ এবং এর দ্বারা মানুষকে জিরো ওয়েস্ট ব্যবস্থাপনা গ্রহণে অনুপ্রাণিত করা সম্ভব।

আজ বুধবার গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ইনসিনেরেটর অলটারনেটিভসের সাথে গ্লোবাল ডে অব অ্যাকশন এর একাত্বতা প্রকাশ করতে, এসডো ‘হোম কম্পোস্টিং ফর জিরো ওয়েস্ট কমিউনিটি টু গো বিয়োন্ড রিকোভারী’ শীর্ষক একটি ওয়েবিনার এর আয়োজন করা হয়।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

যেখানে ৭ জন উৎসাহী উদ্যোক্তা অংশগ্রহণ করে। ওয়েবিনারে অংশগ্রহণকারী সকলেই ছোট পরিসরে বাগান করেন এবং তারা তাদের মতামত এবং তাদের হোম কম্পোস্টিং এর ছবি সকলের সাথে শেয়ার করেন।

প্রতিযোগীতার নিয়ম অনুযায়ী এসডো শীর্ষ পাঁচজন অংশগ্রহণকারীকে বাছাই করে যারা নিজেদের বাড়িতে করা কম্পোস্টিং এর অভিজ্ঞতা এই ওয়েবিনারে তুলে ধরেন।

একজন অংশগ্রহণকারীর ভাষ্যমতে, আমি আমার রান্নাঘরের বর্জ্যটি যথাযথভাবে কাজে লাগাতে পেরে খুশি এবং রান্নাঘরের বর্জ্য থেকে নির্গত দূর্গন্ধ নিয়ে আমি চিন্তিত নই কারণ কম্পোস্টিং এব সময় কম্পোস্টার থেকে কোনো রকমের দূর্গন্ধ ছড়ায় না।

বিজ্ঞাপন

আরেকজন অংশহগ্রহণকারী বলেন, এই কম্পোস্টিং এর ফলে আমরা আমাদের বাসায় উৎপন্ন জৈব বর্জ্যকে ৭০ শতাংশ পর্যন্ত হ্রাস করতে পারি।

এছাড়াও একজন অংশগ্রহীতা পরামর্শ দেন যে আমরা হোম কম্পোস্টার ব্যবহারের মাধ্যমে এলাকায় অথবা বিল্ডিংভিত্তিকে ছোট পরিসরে বাগান করতে পারি।

এই ওয়েবিনারের আলোচ্য বিষয় ছিল হোম কম্পোস্টিং এর মাধ্যমে মাটির মান উন্নত এবং এর সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ করার জন্য জনগণকে উদ্বুদ্ধ করা এবং কীটনাশক ব্যবহার রোধে সচেতনতা গড়ে তোলা।

এসডোর নির্বাহী পরিচালক সিদ্দীকা সুলতানার মতে, আমরা যদি আমাদের বর্জ্যকে সম্পদে রূপান্তর করতে পারি তবে আমরা প্রচুর বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত সমস্যাগুলি সমাধান করতে পারব।

এসডো ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন, রংপুর সিটি কর্পোরেশন, পরিবেশ অধিদপ্তর, গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ইনসিনেরেটর অলটারনেটিভস এবং পিএসএফ এর সহযোগিতায় ‘বিল্ডিং জিরো ওয়েস্ট কমিউনিটিস ফর এ পলিউশন ফ্রি এসভায়রনমেন্ট ইন বাংলাদেশ’ নামক প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

বিজ্ঞাপন