চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জেলায় জেলায় পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ

করোনাভাইরাসে দেশব্যাপী চলমান অবরুদ্ধ অবস্থা উপেক্ষা করেই গাজীপুর, সাভার ও নারায়ণগঞ্জে বকেয়া বেতনের দাবিতে বিক্ষোভ করেছেন পোশাক শ্রমিকরা।

বেতনের টাকার দাবিতে গাজীপুর মহানগরের ভোগড়া, বাসন সড়ক, চৌরাস্তা কোনাবাড়ী, বোর্ড বাজার, শ্রীপুর এলাকায় কমপক্ষে ১৫টি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন।

বিজ্ঞাপন

ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে শ্রমিকদের বুঝিয়ে সড়ক থেকে সরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেছে। শ্রমিকদের বক্তব্য, করোনাভাইরাসের আতঙ্ক নিয়েও কাজ করিয়ে বেতন না দিলে তাদের খাওয়ার কোনো উপায় নাই।

কারখানা কর্তৃপক্ষ জানায়, লকডাউনের কারণে বৃহস্পতিবার তাদের বেতন দেওয়া সম্ভব হয়নি। বিকাশ নম্বর কালেকশন করা হচ্ছিল। যাদের বিকাশ অ্যাকাউন্ট নেই, তারা বিক্ষোভ করেছেন।

বকেয়া বেতনের দাবিতে সাভার-আশুলিয়ার বেশ কয়েকটি কারখানার শ্রমিকরা কারখানার সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেছেন। সেই সাথে আঞ্চলিক সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন তারা।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার সকালে আশুলিয়ার টেঙ্গুরী পুকুরপাড় এলাকার গ্লোরিয়াস ড্রেস লি., কলতাসূতী এলাকার ফ্রাওলেন ফ্যাশন লিমিটেড, কুটুরিয়া এলাকার জেড অ্যাপারেলস, টপগ্রেড ওয়াশিং লিমিটেড, নরসিংহপুর এলাকার আদিয়াত অ্যাপারেলস এবং খেঁজুর বাগান এলাকার ক্রিস্টাল কম্পোজিট লিমিটেড কারখানার শ্রমিকরা বকেয়া বেতনের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ করেন।

এছাড়াও আশুলিয়ার কবিরপুর এলাকার পলমল কারখানায় শ্রমিক ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেন শ্রমিকরা।

শ্রমিকদের দাবি, চলতি মাসের ১০ তারিখে তাদের বেতন দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কারখানা কর্তৃপক্ষ ১৬ তারিখ বেতন দেবে বলে জানিয়ে দেন। কিন্তু আজ সকালে কারখানায় এসে দেখি কারখানা কর্তৃপক্ষের কেউ আসেনি এবং ফোন করলেও তারা রিসিভ করেনি। তাই বাধ্য হয়েই রাস্তায় নেমেছি।

তারা আরও জানান, এ কারখানার অপারেটররা দুই মাসের বেতন এবং হেলপাররা ৩ মাসের বেতন পাবে।

একই দাবিতে আশুলিয়ার বিভিন্ন এলাকার আরো প্রায় ৬টি কারখানার শ্রমিকরা কারখানার সামনে ও অনেক সড়কে নেমেও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেন।

নারায়ণগঞ্জ বকেয়া বেতনের দাবিতে পোশাক শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেছেন বলে জানা যায়।