চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জাতীয় স্মৃতিসৌধে ভারতের রাষ্ট্রপতির শ্রদ্ধা নিবেদন

ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ঢাকার উপকণ্ঠ সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।

বাংলাদেশে সফররত ভারতীয় রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ দুপুর ১২টা ২৫ মিনিটে একটি হেলিকপ্টারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে পৌঁছান এবং সেখানে পুস্পস্তবক অর্পণ করে জাতীয় বীরদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

Reneta June

সেখানে পৌঁছালে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, কৃষিমন্ত্রী ড. মুহাম্মদ আবদুর রাজ্জাক, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নবম পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল কমান্ডিং অফিসার (জিওসি) মেজর জেনারেল শাহীনুল হক এবং উচ্চপদস্থ বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা ভারতের রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানান।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বিমান বাহিনীর একটি চৌকস দল তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করে। এসময় বিউগলে করুণ সুর বাজানো হয়।

ভারতের রাষ্ট্রপতি স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে একটি অশোক গাছের একটি চারা রোপণ করেন এবং দর্শনার্থীদের বইয়ে সাক্ষর করেন।

দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে রাজধানীর ধানমন্ডির ৩১ নন্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মতি জাদুঘরের উদ্দেশে স্মৃতিসৌধ ত্যাগ করেন কোবিন্দ। সেখানে তিনি সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

ভারতের রাষ্ট্রপতির সফর সামনে রেখে স্মৃতিসৌধ এবং সংলগ্ন এলাকায় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এর আগে কোবিন্দ ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইট সকাল ১১টা ১০ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করে।

ঢাকায় কোবিন্দের প্রথম সফরে তার সঙ্গে রয়েছেন ফার্স্টলেডি শ্রীমতি সবিতা কোবিন্দ, তাদের মেয়ে স্বাতী কোবিন্দ, ভারতের শিক্ষামন্ত্রী এবং দু’জন সংসদ সদস্যসহ বেশ কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। রাষ্ট্রপতি হামিদ বিমানবন্দরে ফুলের তোড়া দিয়ে ভারতের রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানান এবং রাশিদা হামিদও ভারতীয় ফার্স্ট লেডিকে ফুলের তোড়া দিয়ে স্বাগত জানান।

মহামারি করোনা পরিস্থিতির কারণে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভারতের রাষ্ট্রপতিকে সেখানে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনীর একটি চৌকস দল ২১ বার তোপধ্বনিসহ গার্ড অব অনার প্রদান করে।

এসময় উভয় দেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। রাষ্ট্রীয় অতিথি প্যারেড পরিদর্শন করেন এবং এ সময় উভয় দেশের রাষ্ট্রপতি নিজ নিজ দেশের প্রতিনিধি দলের সদস্যদের পরিচয় করিয়ে দেন।

ভারতের ১৪তম রাষ্ট্রপতি সে দেশের প্রতিনিধি হিসেবে বাংলাদেশের বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের আমন্ত্রণে আসা একমাত্র বিদেশি সম্মানিত অতিথি।