চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জাতীয় সংসদে সাদেক হোসেনের জানাজা

বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিএনপি নেতা ও অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের সর্বশেষ মেয়র প্রয়াত সাদেক হোসেন খোকার নামাজের জানাজা জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে তার জানাজায় অংশ নেন সংসদ সদস্য, বিএনপিসহ বিভিন্ন দলের নেতৃবৃন্দ।

বিজ্ঞাপন

এরআগে সকাল সাড়ে আটটার দিকে সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছে। আগের দিন বুধবার নিউইয়র্ক থেকে তার কফিন নিয়ে ঢাকার পথে রওনা হন পরিবারের সদস্যরা।

মুক্তিযুদ্ধের সময় গেরিলা বাহিনী ক্র্যাক প্লাটুনের এই বীরযোদ্ধার মরদেহ দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সর্বস্তরের জনগণের শ্রদ্ধার জন্য রাখা হবে।

জোহরের নামাজের পর নয়াপল্টনে দ্বিতীয় নামাজে জানাজার পর পর্যায়ক্রমে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন, গোপীবাগের বাসভবন ও ধুপখোলা মাঠে জানাজা শেষে তাকে জুরাইন কবরস্থানে দাফন করার কথা রয়েছে।

সোমবার স্থানীয় সময় দুপুরে নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় সাদেক হোসেন খোকার।

বিজ্ঞাপন

কিডনির ক্যান্সারে আক্রান্ত খোকা দীর্ঘদিন ধরে নিউইয়র্কের মেমোরিয়াল স্লোয়েন ক্যাটারিং ক্যান্সার ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

তার পরিবারের সদস্যরা জানান, চিকিৎসকরা যখন তার বাঁচার আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন, তখন জীবনের বাকি দিনগুলো প্রিয় জন্মভূমিতেই কাটাতে চেয়েছিলেন। শেষ ইচ্ছা ছিল, লড়াই করে পাওয়া দেশের মাটিতেই যেন মরতে পারেন। কিন্তু পাসপোর্ট জটিলতায় সেই ইচ্ছা আর পূরণ হয়নি।

সাদেক হোসেন খোকা ১৯৫২ সালের ১২ মে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র থাকাকালে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।

১৯৯১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রথম সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন এবং বিএনপি সরকার গঠন করলে তিনি যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান।

পরবর্তীতে ১৯৯৬ এবং ২০০১ সালেও তিনি সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন এবং ২০০১ সালে তিনি মৎস্য ও পশুসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান।

নির্বাচনে জয়লাভ করে ২০০২ সালের ২৫ এপ্রিল ঢাকার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন সাদেক হোসেন খোকা।

Bellow Post-Green View