চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জাতীয় লিগে হাফসেঞ্চুরির দিন

জাতীয় ক্রিকেট লিগে দুটি ম্যাচ চলছে কক্সবাজারে। টায়ার-১ এর ম্যাচে প্রথমদিন এনামুল হক বিজয় সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন।দ্বিতীয় দিন কেউ সেঞ্চুরির দেখা না পেলেও হাফসেঞ্চুরি পেয়েছেন দুদলের চারজন।

আম্পায়ারকে অপমান করে জাতীয় লিগে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ হয়েছিলেন নাসির হোসেন। আবেদনে সাড়া না দেয়ায় আম্পায়ারকে গালি দিয়েছিলেন। তবে বিশেষ বিবেচনায় সুযোগ পেয়ে রোববার তিনি হাফসেঞ্চুরি করেছেন। ৫৫ রান করে অপরাজিত আছেন রংপুর অধিনায়ক।

ভারত সফরের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে নিজেদের মধ্যে দুটি ২০ ওভারের ম্যাচ খেলবে জাতীয় ক্রিকেট দলের স্কোয়াডে থাকা খেলোয়াড়রা। এ দুই ম্যাচের জন্য চলতি জাতীয় ক্রিকেট লিগ থেকে ১০ জন ক্রিকেটারকে ডেকে নিয়েছে বিসিবি। রংপুর বিভাগ থেকে নেয়া হয়েছে লেগস্পিনার রিশাদ হোসেনকে। তার জায়গায় পরিবর্তিত খেলোয়াড় হিসেবে সুযোগ পেয়ে যান নাসির। আচরণের পরিবর্তন আর ভালো ব্যবহার বিবেচনা করে তাকে ‘বিশেষ বিবেচনায়’ সুযোগ দেয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে ভুল করেননি নাসির। চলতি আসরে প্রথমবারের মতো হাফসেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন। তার ইনিংসেই রংপুর বিভাগ লিড পেয়েছে ৬২ রানের।

নাসির হোসেন ব্যাট করতে নামেন সাত নম্বরে। দিনশেষে তিনি অপরাজিত রয়েছেন ৮২ বলে ৫ চার ও ২ ছয়ের ৫৫ রান করে। রাজশাহীর করা ২০১ রানের জবাবে রংপুরের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২৬৩ রান।

নাসির ছাড়াও রংপুরের হয়ে হাফসেঞ্চুরি করেছেন নাঈম ইসলাম। তিনি আউট হয়েছেন ৫৪ রান করে। তিন রানের জন্য হাফসেঞ্চুরি করতে পারেননি আরিফুল হক। ৪৭ রান করে আউট হয়েছেন তিনি। ১৪ রানে অপরাজিত আছেন ধীমান ঘোষ।

অন্য ম্যাচে, খুলনার ৩৭১ রানের জবাবে দিনশেষে ২ উইকেটে ২০৬ রান করেছে ঢাকা ডিভিশন। হাফসেঞ্চুরি করেছেন তাদের দুই ওপেনার। রনি তালুকদার ৭৩ ও জয়রাজ শেখ ৫১ রান করে ফিরেছেন। এছাড়া সাইফ হাসান ৪১ ও রকিবুল হাসান ৩৮ রানে অপরাজিত আছেন।

বিজ্ঞাপন