চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস: করোনার কারণে নেই কোনো আয়োজন

আজ ৩ এপ্রিল জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস। বিশেষ দিনটি প্রতিবছর নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হয়। চলচ্চিত্রাঙ্গনের মানুষের পদচারণায় মুখরিত হয় বিএফডিসি। কিন্তু এবার জনমানবহীন নীরব-নিস্তব্দ এফডিসি। মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে চলচ্চিত্র দিবস নিয়ে নেই কোনো আয়োজন।

এফডিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা হিমাদ্রী বড়ুয়া বলেন, করোনাভাইরাসে লকডাউনের কারণে সবকিছুই বন্ধ আছে। এজন্য চলচ্চিত্র দিবসে চলতি বছর এফডিসি থেকে কোনো আয়োজন থাকছে না।

বিজ্ঞাপন

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা স্থবির হয়ে পড়েছে। এমন অবস্থায় চলচ্চিত্র দিবসও পালিত হচ্ছে না। চলচ্চিত্রের নানা সংগঠন দিনটিকে ঘিরে মাসখানেক আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়ে থাকেন। কিন্তু এবার তার ব্যতিক্রম হয়েছে। তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। অঘোষিতভাবে দিবসটি বাতিল হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

চ্যানেল আই অনলাইনকে প্রযোজক পরিবেশক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু বলেন, পুরো বিশ্ব এখন একটি ভয়ঙ্কর সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। সাধারণ মানুষ ভয়ে আছে। আমাদেরও একই অবস্থা। করোনার কারণে কোনো প্রকার আয়োজন করা হচ্ছে না।’

শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস প্রতি বছরই আমাদের মধ্যে প্রাণ সঞ্চার করে দিয়ে যায়। এই দিনটি আমাদের জন্য অনুপ্রেরণার। কারণ এই বিশেষ দিনে চলচ্চিত্রের প্রবীন ও গুণীদের সাক্ষাৎ পাই। নবীন-প্রবীনদের মধ্যে একটা মেলবন্ধন হয়। কিন্তু এবার তো করোনা সবকিছু ভন্ডুল করে দিলো। তাই সবার উদ্দেশ্যে বলি, বেঁচে থাকলে আগামি বছর আরো সুন্দর করে বড় আয়োজনে জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস পালন করবো।

চিত্রনায়ক ও শিল্পী সমিতির এই নেতা বলেন, করোনা মুক্ত বাংলাদেশ চাই, আপাতত জাতীয় চলচ্চিত্র দিবসে এটাই আমাদের প্রত্যাশা। চলচ্চিত্রের সঙ্গে জড়িত সকল শিল্পীদের এই করুণ সময়ে নিরাপদে থাকারও আহ্বান জানান তিনি।

প্রতিবছর জাতীয় চলচ্চিত্র দিবসকে ঘিরে এফডিসি বর্ণিল রঙে সেজে উঠে। নবীন প্রবীন তারকাদের পদচারণায় মুখরিত হয় চলচ্চিত্রের এই আঁতুর ঘর। স্মরণিকা প্রকাশ, লাইভ টক শো, লাল গালিচা সংবর্ধনা, মেলা, স্থিরচিত্র প্রদর্শনী, চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, পুতুল নাচ, নাগরদোলা, বায়োস্কোপ ও সাংস্কৃতিক পরিবেশনা করা হয়।

১৯৫৭ সালের ৩ এপ্রিল প্রাদেশিক আইন পরিষদের শেষ দিন তৎকালীন শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ‘পূর্ব পাকিস্তান চলচ্চিত্র উন্নয়ন সংস্থা’ বিল উত্থাপন করেন। ২০১২ সালের ৩ এপ্রিল থেকে জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস উদ্যাপন শুরু হয়। তারপর থেকে নিরবচ্ছিন্নভাবে দিবসটি পালিত হয়েছে।