চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জনগণকে একটু রেহাই দেন: রওশন এরশাদ

দেশের সাধারণ জনগণ গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি চায় না দাবি করে সংসদে বিরোধী দলের উপ-নেতা রওশন এরশাদ বলেছেন: আমরা উন্নয়ন চাই কিন্তু গ্যাসের দাম বাড়াতে চাই না। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত যখন গ্যাসের দাম কমাচ্ছে তখন আমাদের বাড়ছে কেন? জনগণকে একটু রেহাই দেন। 

বৃহস্পতিবার একাদশ জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনে সমাপনী বক্তব্যে বিরোধী দলের নেতার পক্ষে দেওয়া বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি এ কথা বলেন।

বিজ্ঞাপন

রওশন বলেন: প্রধানমন্ত্রী, আমরা উন্নয়ন চাই, কিন্তু গ্যাসের দাম বাড়াতে চাই না। এটা আমাদের কথা নয়, জনগণের কথা। যেদিন বাজেট পাস হলো সেদিনই গ্যাসের দাম বেড়ে গেল। আমাদের এখানে গ্যাসের দাম বাড়িয়ে দিলাম আর তার পাশের দেশে গ্যাসের দাম কমিয়ে দিলে। যে সিলিন্ডারের  গ্যাসে ভারতে রান্না করা হয় সেখানে ১০০ টাকা কমিয়ে দেওয়া হলো। ভারতে যদি গ্যাসের দাম কমে আমাদের এখানে হঠাৎ করে বাড়লো কেন?

এসময় তিনি গ্যাস আমদানির থেকে গ্যাস আহরণের প্রতি গুরুত্ব আরোপ করে বলেন: আমাদের সমুদ্রে গ্যাস আছে। সেটা আমরা তুলি না কেন? যদি এখন তোলার চেষ্টা করি, তাহলে হয়তো দু-তিন বছর সময় চলে যাবে। কিন্তু চেষ্টা এখনই করতে হবে। মনে হয়, গ্যাসের দাম এখনই না বাড়িয়ে আবার পুনর্বিবেচনা করা যায়। জনগণকে একটু রেহাই দেন, রেহাই দেওয়া উচিত।

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন: আমার মনে হয় অনেক জনগণ আছেন যাদের এত দাম দিয়ে গ্যাস কেনার মত সামর্থ্য নেই। এটা বিশেষভাবে বিবেচনা করার জন্য প্রধানমন্ত্রী এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীকে অনুরোধ করছি।

এসময় তিনি তরুণ প্রজন্মের স্মার্টফোন ব্যবহারের বিভিন্ন কুফল তুলে ধরে তা নিয়ন্ত্রণের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন। বলেন: স্মার্টফোন ব্যবহার করে আমাদের ছেলেমেয়েরা তারা নিজেদের একটা অন্যরকম জগৎ তৈরি করছে। তাতে করে তাদের মন-মানসিকতায় পরিবর্তন আসছে। এতে থেকে যদি আমরা আমাদের ছেলেমেয়েদের বাঁচাতে না পারি ভবিষ্যতে কিভাবে বাংলাদেশকে তাদের হাতে তুলে দেব।

স্মার্টফোনের সুবিধা অসুবিধা দুটাই রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন: স্মার্টফোনের সুবিধা যেমন আছে, এর অসুবিধাও আছে। ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের হাতে যদি স্মার্ট ফোন থাকে, তাহলে এটা তাদেরকে মাদকের মতো আসক্ত করে ফেলে। এ থেকে উত্তরণের জন্য আমাদের একটা রাস্তা খুঁজতে হবে। যেন আমরা আমাদের ছেলে মেয়েদেরকে এ থেকে বাঁচাতে পারি। প্রধানমন্ত্রী আপনি যে সোনার বাংলা গড়তে যাচ্ছেন এই ছেলে মেয়েদের বাঁচাতে না পারলে কিভাবে সেটা সম্ভব? খাওয়া নেই, দাওয়া নেই সারা রাত জেগে থাকে স্মার্টফোনে, এক একজনের চেহারা লিকলিকে হয়ে যাচ্ছে।

এসময় তিনি সাংবাদিকদের জন্য নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ় ভূমিকা প্রত্যাশা করেন।