চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চীনের ল্যাব থেকে করোনা ছড়ানোর সম্ভাবনা নেই: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

করোনাভাইরাস চীনের ল্যাব থেকে এসেছে এ তথ্য প্রত্যাখান করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞের দল। মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে জানানো হয়েছে। এমনটাই জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি। 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুসন্ধানী মিশনের প্রধান পিটার বেন এমবারেক বলছেন, উহান শহরের একটি ল্যাব থেকে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছে এই সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ভাইরাসের উৎস খুঁজে বের করতে আমাদের আরো কাজ করতে হবে। একজন বিশেষজ্ঞ বলেন, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় এখন অনুসন্ধান চালানো হচ্ছে। অনুসন্ধানের শেষ পর্যায়ে এসে দাঁড়িয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

২০১৯ সালের শেষের দিকে উহানে সর্বপ্রথম করোনাভাইরাসের খোঁজ পাওয়া যায়। বিশ্বে এ পর্যন্ত ১০ কোটি ৬০ লাখের বেশি করোনার রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২৩ লাখ মানুষ। বিশেষজ্ঞদের ধারণা কোনো প্রাণীর শরীর থেকে ভাইরাসটি প্রথমে ছড়িয়েছে, মানুষের মাধ্যমে না। তবে এ বিষয়ে তারা এখনো নিশ্চিত না।

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, মানুষের শরীরে ছড়ানোর আগে ভাইরাসটি অন্য কোনো প্রাণী থেকে এসেছে। তবে কীভাবে এটি ঘটেছে, সে বিষয়ে তারা নিশ্চিত নন।

বিজ্ঞাপন

ডা. এমবারেক জানান, কোভিড-১৯ এর উৎস খুঁজতে গিয়ে বাদুড়ের কোনো ‘প্রাকৃতিক সংরক্ষণাগার’ থেকেই এই ভাইরাস ছড়িয়েছে বলে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। তবে তা উহানে হওয়ার সম্ভাবনা কম।

তিনি আরও জানান, অন্য কোনো প্রাণী থেকে মানবদেহে ভাইরাসটি সংক্রমিত হয়েছে কিনা সেটি বের করতে এখনও অনেক কাজ বাকি। তবে মধ্যবর্তী কোনো প্রজাতি থেকেই মানবদেহে ভাইরাসটি ছড়ানোর সম্ভাবনা বেশি।

দলটি বলছে ভাইরাসটি প্রাণী থেকে মানুষে ছড়াতে পারে। এক্ষেত্রে বাদুড় ও পাঙ্গোলিনের মাধ্যমে ছড়ানোর সম্ভাবনা আছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো শক্ত প্রমাণ মেলেনি। করোনার উৎস নিয়ে অনুসন্ধান চলতে থাকবে বলে জানান তারা।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞ দলের এক সদস্য বলেছেন, অনুসন্ধানের জন্য এখন দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দিকে মনোনিবেশ করা যেতে পারে।

হিমায়িত খাবার পরিবহন ও ব্যবসার দিকে ইঙ্গিত করে বিশেষজ্ঞ দলটি বলছে, এই ‘কোল্ড চেইন’ ধরে ভাইরাসটি সংক্রমণের সম্ভাবনা খতিয়ে দেখতে আরও অনুসন্ধান করা প্রয়োজন।

বিজ্ঞাপন