চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চারুনীড়মের মূল প্রতিযোগিতায় শাওনের ‘মুখের দিকে দেখি’

আনন্দ আলো চারুনীড়ম কাহিনীচিত্র উৎসব-২০১৮

‘মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহেদ উদ্দিন পুরানো একটি বাড়িতে নিঃসঙ্গ জীবন যাপন করেন। টাইপ রাইটারে নিজের জীবনী লেখা, মাঝেমধ্যে কলেরগান শোনা, পুরানো ল্যান্ডফোনে কথা বলা,ভাঙ্গা ফনিক্স সাইকেল চালিয়ে বাজারে যাওয়া এভাবেই সময় কেটে যায় তার। তার নৈমিত্তিক জীবনে পরিবর্তন আসে একমাত্র ছেলে মিনার অনেক দিন পরে বিলাত থেকে বউ নিয়ে এলে।

ওয়াহেদ উদ্দিন খুব উল্লসিত হয়ে পড়েন এই ভেবে যে, ছেলে ও ভাঙা ভাঙা বাংলা বলা বিলেতি বউ রুজমিলার সাথে চুটিয়ে গল্প করা যাবে! কিন্তু তার এই উচ্ছ্বাস বেশিক্ষণ স্থায়ী হয় না, যখন ছেলে মিনার এই পুরানো বাড়ি বিক্রি করে বাবাকে বিলেত নিয়ে যেতে চায়। মিনার-রুজমিলা দুজনে মিলে ওয়াহেদ উদ্দিনের এতদিনের অভ্যাস পরিবর্তনের জন্য প্রাণান্তকর চেষ্টা চালিয়ে যায়। ল্যান্ডফোন ফেলে হাতে ধরিয়ে দেয় আইফোন, মাথায় উইগ, পাজামা-পাঞ্জাবির বদলে স্যুট-কোট। ডেভেলপার কোম্পানিকে নিয়ে আসে বাড়ি বিক্রির জন্য। ওয়াহেদ উদ্দিন অনড়। এই বাড়ি ছেড়ে কোথাও যাবেন না। ছিড়ে ফেলে বাড়ি বিক্রির ডিড। হতভম্ব মিনার-রুজমিলা চলে যায় বাবাকে ছাড়াই। যাবার সময় রেখে যায় একটি সিডি। রাতে ওয়াহেদ উদ্দিন এই সিডি দেখে বিস্মিত, আবেগ আক্রান্ত হয়ে পড়েন। ভিন্নরূপে আবিষ্কার করেন ছেলে মিনার ও পুত্রবধূ রুজমিলাকে।’

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

-এমন মনমুগ্ধকর আর ছুঁয়ে যাওয়া গল্পে তরুণ নির্মাতা সেরনিয়াবাত শাওন গেল বছরে নির্মাণ করেছিলেন টিভি নাটক ‘মুখের দিকে দেখি’। বেসরকারি একটি টেলিভিশনে যা প্রচার হয়েছিলো ২৬ মার্চ। নাটকটি প্রচারের পর দর্শক ও আলোচকদের থেকেও প্রশংসা পেয়েছেন বেশ। আর এবার এই নাটকের জন্য স্বীকৃতির দ্বারপ্রান্তে শাওন।

‘বিশ্ব চলচ্চিত্রে বাংলাদেশ হয়ে উঠুক উজ্জ্বল’-এই শ্লোগানে আগামী ৫ মার্চ থেকে ৯ মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশের বিভিন্ন স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচারিত ২৪টি সেরা কাহিনীচিত্র নিয়ে শুরু হচ্ছে ‘আনন্দ আলো চারুনীড়ম কাহিনীচিত্র উৎসব ২০১৮’। আর এখানেই চূড়ান্ত প্রতিযোগিতা পর্বে দেখানো হবে সেরনিয়াবাত শাওনের ‘মুখের দিকে দেখি’। শাহবাগ জাতীয় গণগন্থাগার শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে ৭ মার্চ সন্ধ্যা ৬টায় দেখানো হবে নাটকটি।

বিজ্ঞাপন

মান সম্মত কাহিনীচিত্রগুলোকে উৎসাহিত করাই চারুনীড়মের উদ্দেশ্য। আর এমন আসরে নিজের সৃষ্টি নিয়ে দ্বিতীয়বারের সারনিয়াবাত শাওন। উচ্ছ্বাসটাও যেনো অন্যদের থেকে বেশি। প্রতিযোগিতার মূল পর্বে নিজের নাটক থাকায় উচ্ছ্বসিত এই নির্মাতা চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার পর থেকে চারুনীড়মের নিয়মিত দর্শক আমি। ২০০৮ সাল থেকে উৎসবের প্রায় সব নাটকই আমার দেখা। ফিল্মের সাথে জড়িত থাকায় বড় পর্দায় নিজের কাজ দেখার একটা আকাঙ্ক্ষা বহুদিন ধরেই। নিজে কাজ শুরু করার পর পর দুই বছর-ই উৎসবের জন্য সিলেকশন হয়েছে আমার ফিকশন। তাই ভালোলাগাটা সম্ভবত অন্যদের চেয়ে কিঞ্চিৎ বেশি।

এরজন্য ‘মুখের দিকে দেখি’র সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি বলেন, কাহিনীচিত্রের সাথে সংশ্লিষ্ট সকল শিল্পী ও কলাকুশলী,আমার প্রডিউসার, গল্পকার এবং টিমের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

সেরনিয়াবাত শাওনের নির্মাণে ‘মুখের দিকে দেখি’ নাটকটি প্রযোজনা করেছেন কাজী সাইফুল। গল্প:মাহমুদ দিদার। অভিনয়ে আছেন রাইসুল ইসলাম আসাদ, এফ এস নাইম,নাদিয়া আফরিন মিম,নিকুল কুমার মন্ডল ও ইখতারুল ইসলাম।

২০০৯ সাল থেকে চারুনীড়ম নিয়মিতভাবে উৎসব ও পুরস্কারের আয়োজন করে আসছে। সেই ধারাবাহিকতায় এবারও ২০১৭ সালে বিভিন্ন স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচারিত নতুন ও পুরাতন নির্মাতাদের ২৪টি এক ঘন্টার কাহিনীচিত্র নিয়ে শুরু হতে যাচ্ছে ‘আনন্দ আলো চারুনীড়ম কাহিনীচিত্র উৎসব-২০১৮’।