চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘গ্রুপ অব ডেথ’ থেকে লিভারপুলের সঙ্গী অ্যাটলেটিকো

নক আউটে যেতে পারল না এসি মিলান

ম্যাচের শেষ ছয় মিনিটে ৩ গোলের রোমাঞ্চ। উত্তেজনা, হাতাহাতি। শেষে এফসি পোর্তোকে ৩-১ গোলে হারিয়ে গ্রুপ অব ডেথ থেকে বাজিমাত করেছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। ত্রিমুখী লড়াইয়ে জিতে ‘গ্রুপ-বি’ থেকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোয় জায়গা করে নিয়েছে ডিয়েগো সিমিওনের শিষ্যরা।

ডাগআউটে দুদলের কোচিং স্টাফ-খেলোয়াড়দের হাতাহাতির ঘটনা উত্তাপ ছড়িয়েছে। ম্যাচের ৬৭ থেকে ৭৫ মিনিট পর্যন্ত মাঠের নিয়ন্ত্রণ রাখতে রেফারিকে তিনটি করে লাল ও হলুদ কার্ড বের করতে হয়েছে। অ্যাটলেটিকোর ইয়ান্নিক কারাসকো, পোর্তোর ওয়েনডেল ও অগাস্টিন মারচেসিন লাল কার্ডে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন।

গ্রুপের আরেক ম্যাচে এসি মিলানকে ২-১ গোলে হারিয়েছে লিভারপুল। প্রথম ইংলিশ ক্লাব হিসেবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাস গড়েছে। গ্রুপপর্বে ৬ ম্যাচের সবকটিতে জেতার রেকর্ড গড়েছে অল রেডরা। ১৮ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে নক আউটে গেছে ইয়ূর্গেন ক্লপের শিষ্যরা।

দুই জয়, এক ড্র ও তিন হারে ৭ পয়েন্ট নিয়ে এফসি পোর্তো এবং এসি মিলানের সঙ্গে ত্রিমুখী লড়াইয়ের পর অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ শেষ ষোলোয় উঠেছে। ৫ পয়েন্ট পেয়ে ইউরোপা লিগে খেলা নিশ্চিত করেছে পোর্তো। ৪ পয়েন্ট পাওয়া এসি মিলানের নেই সেই সাফল্যও।

বিজ্ঞাপন

এস্তাদিও ডি দ্রাগাওয়ে ম্যাচের প্রথমার্ধ গোলশূন্য কাটে। ৫৬ মিনিটে কর্নার কিক থেকে বল পেয়ে বাঁ-পায়ের শটে গোল করেন অ্যান্টনিও গ্রিজম্যান। মেলে লিড।

ম্যাচের ৯০ মিনিট থেকে শুরু হয় রোমাঞ্চ। গ্রিজম্যানের বাড়ানো বল পেয়ে অ্যাঞ্জেল কোরেয়া ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। দুই মিনিট পর অতিথি দলের হয়ে জালে বল জড়ান রদ্রিগো ডে পল। যোগ করা সময়ের ষষ্ঠ মিনিটে স্পটকিকে সাফল্য এনে পোর্তোর সান্ত্বনার গোলটি করেন সার্জিও অলিভিয়ের।

অন্যদিকে, সান সিরো স্টেডিয়ামে লিভারপুলের বিপক্ষে শুরুতে লিড পেয়েছিল এসি মিলান। কর্নার কিক থেকে তৈরি হওয়া সম্ভাবনা কাজে লাগিয়ে ডান পায়ের শটে গোল করেন ফিকায়ো টামোরি।

আট মিনিট পর অলরেড ডাগআউটে স্বস্তি ফেরান মোহাম্মেদ সালাহ। তার বাঁ-পায়ের ছোঁয়ায় সমতায় ফেরে সফরকারীরা। বিরতির পর ৫৫ মিনিটে ডিভক অরিগি হেডে লক্ষ্যভেদ করলে এসি মিলানের বিদায় নিশ্চিত হয়।

বিজ্ঞাপন