চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

গোলরক্ষক হয়ে গোল দিলেন আরেকজনকে

লিওনেল মেসি ছিলেন না, তৃতীয় বিভাগের দল কোর্নিয়ার বিপক্ষে দুই পেনাল্টি পেয়ে একটিও কাজে লাগাতে পারেনি বার্সেলোনা। সেই ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে আগামী ম্যাচে গোলরক্ষক মার্ক-আন্দ্রে টের স্টেগেনকে পেনাল্টি নিতে যদি পাঠিয়ে দেয় বার্সা, তাতে চমকের কিছু থাকবে না। অন্তত সুযোগ কীভাবে কাজে লাগাতে হয় সেটা লা লিগার আরেক দল এইবারের কাছ থেকে শিখতে পারে মেসিবিহীন বার্সা!

বৃহস্পতিবার রাতে আক্ষরিক অর্থেই চমকে দিয়েছে লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের ১৫তম দল এইবার। লিগে নিজ মাঠে টেবিলের শীর্ষ দল অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে আতিথ্য দিয়েছিল তারা। ম্যাচের শুরুর দিকে পেয়ে বসে পেনাল্টিও।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

যারা ম্যাচে চোখ রাখছিলেন হয়ত চমকে গেছেন তখন। কারণ দলে একাধিক প্রতিষ্ঠিত ফরোয়ার্ড-মিডফিল্ডার থাকা সত্ত্বেও শট নিতে এগিয়ে এলেন মার্কো দিমিত্রোভিচ, যিনি কিনা এইবারের গোলরক্ষক!

গোলরক্ষক হলেও নিশানাভেদে যে সার্বিয়ান দিমিত্রোভিচ নির্ভুল, সেটা ম্যাচের ১২ মিনিটে বুঝিয়ে দিয়েছেন। ১২ গজ দূর থেকে নেয়া তার স্পটকিক ঠেকাতে পারেননি অ্যাটলেটিকো ও বর্তমান ফুটবলের অন্যতম সেরা গোলরক্ষক ইয়ান ওব্লাক। আসলে ঠেকাবেন কী, ধাঁধায় পড়ে ওব্লাক ঝাঁপান বামে আর সুযোগ সন্ধানী দিমিত্রোভিচ বল জালে জড়ান ডান প্রান্ত দিয়ে।

এই গোল দিয়ে লা লিগায় এক অভিজাত গোলরক্ষকদের তালিকায় জায়গা পেয়েছেন দিমিত্রোভিচ। শতবর্ষী লা লিগায় ২৮ বছর দিমিত্রোভিচ মাত্র সপ্তম গোলরক্ষক যারা কিনা অন্যের জালে বল জড়ানোর অসামান্য কৃতিত্বের ইতিহাস গড়েছেন।

বিজ্ঞাপন

দিমিত্রোভিচের পেনাল্টি দেখে যেমন অবাক হচ্ছেন অনেকে, তেমনি চলছে ঠাট্টা-টিপন্নিও। এক ভক্ত যেমন লিভারপুল আর রিয়াল মাদ্রিদকে খোঁচা মেরে টুইটারে লিখেছেন, ২০২১ সালে লিভারপুল আর এডেন হ্যাজার্ডের চেয়েও বেশি গোল করেছেন এই সার্বিয়ান গোলরক্ষক!

অবশ্য হুট করেই যে পেনাল্টি নিতে এসেছেন দিমিত্রোভিচ সেটাও নয়। এইবার কোচ হোসে লুইস মেন্ডিবার ম্যাচ শেষে জানিয়েছেন, অনুশীলনে অন্যসবার চেয়ে স্পট কিকে ভালো বলেই শট নিতে দেয়া হয়েছে দিমিত্রোভিচকে।

‘সবাই হাল ছেড়ে দিলেও যতক্ষণ পর্যন্ত ব্যর্থ না হয় ততক্ষণ দিমিত্রোভিচ শট নিতেই থাকে। সবাই পাঁচটা করে শট নেয়, যদি তারা ব্যর্থ হয় তাহলে আমরা খেলোয়াড় পাল্টে ফেলি, এটাই আইন। আমাদের দিমিত্রোভিচের উপর ভরসা ছিল। কারণ অনুশীলনে সে দারুণ শট নেয়।’

শুরুতে এগিয়ে গেলেও শেষ পর্যন্ত লিডটা ধরে রাখতে পারেনি এইবার, হেরেছে ম্যাচও। নিজে যেমন স্পটকিকে গোল পেলেও লুইস সুয়ারেজকে ঠেকাতে পারেননি দিমিত্রোভিচ। উরুগুয়ে তারকার জোড়া গোলে ম্যাচটা ২-১এ জিতে নেয় অ্যাটলেটিকো।

ম্যাচের ৪০ মিনিটে সমতা ফেরানোর পর ৮৯ মিনিটে স্পটকিকে পানেনকা শটে এইবার গোলরক্ষককে পরাজিত করেন সুয়ারেজ। জোড়া গোলে বন্ধু লিওনেল মেসির সঙ্গে লা লিগার মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলদাতাদের তালিকায় উঠে এসেছেন ৩২ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড।