চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

গুলজারের সিনেমায় চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে নিরব

সিনেমা নিয়েই যতো ব্যস্ততা নিরবের। সিনেমায় প্যাশন ও প্রফেশনের কারণে কিছুদিন আগে কর্পোরেট চাকরী ছেড়েছেন এ নায়ক। এবার তিনি জানালেন, নতুন সিনেমা ‘টুঙ্গিপাড়ার দুঃসাহসী খোকা’তে কাজ করতে যাচ্ছেন।

যেখানে নিরবকে দেখা যাবে ৯০ বছর আগের এক চরিত্রে। ২০১৯-২০ সালে সরকারি অনুদান পাওয়া এ সিনেমার পরিচালক মুশফিকুর রহমান গুলজার।

মাসুম রেজার চিত্রনাট্যে পিরিওডিক্যাল গল্পের সিনেমা ‘টুঙ্গিপাড়ার দুঃসাহসী খোকা’তে নিরব অভিনয় করবেন শেখ নূরুল হকের চরিত্রে।

বৃহস্পতিবার এফডিসিতে সিনেমাটিতে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর চ্যানেল আই অনলাইনকে নিরব বলেন, ‘টুঙ্গিপাড়ার দুঃসাহসী খোকা’ সিনেমায় শেখ নূরুল হকের চরিত্র করবো। তিনি শেখ হেলালের পিতা ও ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপসের দাদা। ২৬ তারিখ থেকে শুটিং হবে।

বিজ্ঞাপন

১৯৩০-৩২ সালের প্রেক্ষাপট উঠে আসবে ‘টুঙ্গিপাড়ার দুঃসাহসী খোকা’ সিনেমায়, যখন বঙ্গবন্ধুর বয়স ছিল ১৪ বছর। তৎকালীন প্রেক্ষাপট নিখুঁতভাবে তুলে আনতে বদ্ধ পরিকর গুণী নির্মাতা মুশফিকুর রহমান গুলজার। ইতোমধ্যে সিনেমার শুটিং শুরু করেছেন নির্মাতা।

নিরব জানান, ১৯৩০ সালের ঘটনা দেখা যাবে সিনেমায়। কলকাতার একটি ব্যাংকে চাকরী করতেন শেখ নূরুল হক।  ওইসময় বঙ্গবন্ধু কিশোর ছিলেন। তিনি একটি রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন। শেখ নূরুল হক বিভিন্ন হাসপাতাল ঘুরে বঙ্গবন্ধুর চিকিৎসা করিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু হয়ে ওঠার নেপথ্যে ওই মানুষটির অনেক অবদান ছিল।

নিরব বলেন, বহু আগের গল্প যা আমাদের অজানা। বঙ্গবন্ধুর জীবনী অনেকেই জানেন কিন্তু তার কিশোরকাল সম্পর্কে অনেকের অজানা। সেই সময়টায় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোই এ সিনেমার উপজীব্য। আমার চরিত্রটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। স্ক্রিপ্ট পড়েছি। মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিতে হচ্ছে। তাছাড়া এখানে সেই সময়কার শেখ নূরুল হকের মতো লুক নিতে হচ্ছে।

‘টুঙ্গিপাড়ার দুঃসাহসী খোকা’ হচ্ছে নিরব অভিনীত তৃতীয় সরকারি অনুদানের সিনেমা। এর আগে তিনি ২০১৯-২০ অর্থবছরে বন্ধন বিশ্বাসের পরিচালনায় ‘ছায়াবৃক্ষ’ ও রোজিনার পরিচালনায় ‘ফিরে দেখা’ সিনেমাতে কাজ করেছেন। নিরব জানান, এ দুটি সিনেমার শুটিং পুরোপুরি শেষ। বর্তমানে পোস্ট প্রডাকশন চলছে। শিগগির সিনেমা হলে মুক্তি পাবে।

বিজ্ঞাপন