চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

গান দিয়ে শুরু নিরব-স্পর্শিয়ার ‘ফিরে দেখা’

চিত্রনায়িকা রোজিনার প্রথম পরিচালনায় রাজবাড়িতে শুরু হয়েছে পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা ‘ফিরে দেখা’র শুটিং…

অর্চিতা স্পর্শিয়াকে নিয়ে নতুন সিনেমার শুটিং শুরু করলেন চিত্রনায়ক নিরব। যে সিনেমার নাম ‘ফিরে দেখা’। পরিচালনা করছেন কিংবদন্তী অভিনেত্রী রোজিনা।

রাজবাড়ীর জেলার পদ্মা নদীর পাড়ে মঙ্গলবার সকাল ভোর থেকে শুটিং করছেন নিরব-স্পর্শিয়া। এই সিনেমার মাধ্যমে প্রথমবার তারা একসঙ্গে জুটি বাঁধলেন। এই দুই শিল্পী জানান, গান দিয়েই ‘ফিরে দেখা’ শুরু হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

রাজবাড়ী থেকে মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে নিরব কথা বলেন চ্যানেল আই অনলাইনের সাথে। নিরব তখন বলছিলেন, নদীর তীরবর্তী নৌকায় বসে দুপুরের খাবার খাচ্ছিলেন তিনি। নিরবের সঙ্গে ছিলেন স্পর্শিয়া, কোরিওগ্রাফার মাসুম বাবুল এবং শুটিং ইউনিটের অন্য সদস্যরা। নিরব বলেন, গত রাতে এফডিসিতে ‘চোখ’ সিনেমার শুটিং শেষ করে রাজবাড়ী এসেছি ফিরে দেখা’র শুটিংয়ে।

প্রায় ২০ দিন টানা সেখানে শুটিং করবেন নিরব। তিনি বলেন, আমার নিজের জেলা রাজবাড়ী। প্রথম নিজের এলাকায় সিনেমার শুটিং করছি। নিজের মধ্যে অন্যরকম  অনুভূতি কাজ করছে। এখানে আমার দাদা ও নানা বাড়ি। সবাই আমার আপন মানুষ। তাই এই সিনেমার জন্য আমার আলাদা এক টান কাজ করছে। ভোর থেকে গানের শুটিং করেছি, সন্ধ্যায় অন্য দৃশ্যের শুটিং করব।

বিজ্ঞাপন

স্পর্শিয়া বলেন, রোজিনা আপু তো লিজেন্ডারি ব্যক্তিত্ব। তার নির্দেশনায় প্রথমবার সিনেমা কর‍ছি। নতুন সিনেমা, নতুন পরিবেশে কাজ করছি। এটা আমার জন্য এক নতুন অভিজ্ঞতা মনে হচ্ছে। নিরব আমার পূর্বপরিচিত। তার সঙ্গে এই সিনেমা দিয়ে প্রথম কাজ হচ্ছে। প্রথম দিন ভোর থেকেই আমরা পরিশ্রম ও কষ্ট করে শুটিং করছি। সবকিছুই ঠিকভাবে হচ্ছে।

নিরব জানান, প্রথমদিন যে গানটির মাধ্যমে ‘ফিরে দেখা’র শুটিং শুরু হয়েছে ওই গানটির নাম ‘অন্তর মোড়ে’। লিখেছেন সোমেশ্বর অলি। গেয়েছেন ইমরান ও কনা। নিরব বলেন, এটি পুরোপুরি রোমান্টিক গান। গল্পের সঙ্গে মিলিয়ে গানটি রাখা।

‘ফিরে দেখা’ সরকারি অনুদান প্রাপ্ত সিনেমা। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে রোজিনা এ সিনেমার জন্য অনুদান পেয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধের সময়ের গল্প নিয়ে ‘ফিরে দেখা’ সিনেমার কাহিনী। চিত্রনাট্য করেছেন রোজিনা নিজেই। গোয়ালন্দ উপজেলার কুমড়াকাধি গ্রামের একটি পরিবার ও রোজিনার স্মৃতি থেকে কিছু ঘটনা নিয়ে ছবির গল্প।

এ সিনেমার মাধ্যমে প্রথমবার সিনেমা নির্মাণ করছেন রোজিনা। তিনি বলেন, গোয়ালন্দ আমার নানাবাড়ি। যুদ্ধের সময় আমি সেখানেই ছিলাম। বোঝার মতো বয়স ছিল তখন। সিনেমায় আমার দেখা যুদ্ধের সময়ের কিছু ঘটনাও থাকবে। আমি বিশ্বাস করি অভিনয়ে যেমন দর্শক আমাকে গ্রহণ করেছেন, কাজগুলো মনে রেখেছেন; পরিচালনাতেও আমার কাজ দর্শক দেখবেন।