চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

খুলনায় একদিনে ১৩ মৃত্যু, শনাক্তের হার ৩৯ শতাংশ

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে খুলনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনাক্তের হার ৩৯ শতাংশ।

খুলনার তিনটি হাসপাতালে আরও ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার সকাল ৮ টা পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

মারা যাওয়া ১৩ জনের মধ্যে খুলনা করোনা হাসপাতালে ছয়জন, গাজী মেডিকেল হাসপাতালে ছয়জন ও জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

খুলনা করোনা হাসপাতালের ফোকাল পার্সন ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, গত ২৪ ঘন্টায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনায় ছয় জনের মৃত্যু হয়েছে।

মৃতরা হলেন, খুলনা মহানগরীর শামসুর আলম (৫৮), লবনচরা এলাকার আনোয়ারা (৫৮), দিঘলিয়ার মো. সোহরাব শেখ (৬৮), রামপালের আফজাল শেখ(৬১), নির্মল কান্তি সাহা (৭৯), যশোর বাঘারপাড়ার ভানু বেগম(৬০)।

এছাড়া ১৩০ শয্যার করোনা হাসপাতালে সকাল ৮ টা পর্যন্ত ১৫৬ জন রোগী ভর্তি ছিল। যার মধ্যে রেডজোনে ৯৮ জন, ইয়ালোজোনে ২২ জন, এইচডিইউতে ১৬ জন এবং আইসিইউতে ২০ জন চিকিৎসাধীন।

বিজ্ঞাপন

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ভর্তি হয়েছেন ২৩ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৮ জন। খুলনা জেলা ও মহানগরীতে ৭৭১টি নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে ৩০৫ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। যা মোট নমুনা পরীক্ষার ৩৯ শতাংশ।

করোনা প্রতিরোধে খুলনা জেলা প্রশাসন মঙ্গলবার থেকে জেলায় সাত দিনের লকডাউন ঘোষণা করে। খুলনায় স্থানীয় প্রশাসন ও আইন-শৃক্সখলাবাহিনীর কঠোর নজরদারিতে লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে পাল্টগেছে চিরচেনা দৃশ্য।

নগরীর খালিশপুর, দৌলতপুর, সোনাডাঙা শিববাড়িম মোড়, পিকচার প্যালেস মোড়, সাত রাস্তার মোড়, বড় বাজার, গল্লামারী ও নিউ মার্কেট এলাকায় বুধবার সকাল থেকেই লোক সমাগম ছিল কম।

পুলিশ পাড়ায় পাড়ায় অভিযান চালিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করেছে। ফলে শপিংমল, দোকানপাট বন্ধ ছিল। হাতে গোনা ইজিবাইক, মাহেন্দ্র, সিএনজি ও রিকশা চলাচল করেছে। জেলা প্রশাসন ও র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়েছে।

লকডাউন চলাকালে গণবিজ্ঞপ্তির বিধি লঙ্ঘন করায় গতকাল মঙ্গলবার মোবাইল কোর্ট জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ৭৯ টি মামলা দায়ের করে। আদালত ৮২ জনকে এক লাখ ৪০ হাজার নয় শ’ টাকা জরিমানা ও ২৮ জনকে কারাদণ্ড প্রদান করে।

জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের নির্দেশে এবং অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ইউসুফ আলীর তত্ত্বাবধায়নে খুলনায় আজ মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হচ্ছে।