চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

খুদে তানভিরকে বিশ্বের নজরে আনলেন মুডি

গুগলিতে মুগ্ধ মুডি, ওয়ার্নের দৃষ্টি আকর্ষণ

পিঠে ব্যাগ ঝুলিয়ে প্রায়ই শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে আসতে দেখা যায় ছোটখাটো গড়নের এক কিশোরকে। জাতীয় দলের নেটে বোলিং করে মুশফিক, তামিম, সাকিবদের প্রশংসা কুড়িয়েছেন আগেই। তানভির রহমান নামের সেই কিশোর এবার জায়গা পেয়েছেন বিপিএলের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্সের অনুশীলনেও। নেটে ১৪ বছরের লেগস্পিনার তানভিরের বোলিং দেখে রীতিমতো মুগ্ধ দলটির কোচ টম মুডি।

খালি নেটে তানভিরের বোলিং মোবাইলে ধারণ করে মুডি পোস্ট করেছেন ইনস্টাগ্রামে। দুটি ভিডিওর একটিতে শুধু লেগস্পিন, অন্যটিতে গুগলি। অস্ট্রেলিয়ার সাবেক এই ক্রিকেটার একসময়ের সতীর্থ শেন ওয়ার্নের দৃষ্টি আকর্ষণ করে পোস্টে হ্যাসট্যাগে লিখেছেন ‘স্পেশালট্যালেন্ট’। ক্যাপশন দিয়েছেন- ‘লেগস্পিনার শোয়িং হিজ স্কিলস।’

ভিডিওটি দেখে অনেকেই কমেন্টে লিখেছেন, ছেলেটিকে সঠিকভাবে পরিচর্যা করতে। আহমেদ নামের একজন লিখেছেন, আশা করি আইপিএলের আগামী আসরে সে সানরাইজার্স হায়দরাবাদে খেলবে। টম মুডি হায়দরাবাদের কোচ হওয়াতেই এমন প্রত্যাশা তার।

বাড্ডায় থাকেন তানভির। গুলশান ইয়ুথ ক্রিকেট ক্লাবে জাতীয় দলের সাবেক কোচ সারোয়ার ইমরানের অধীনে ৪ বছর ধরে শিখছেন লেগস্পিনের নানা শৈলী। এরইমধ্যে জায়গা করে নিয়েছেন ঢাকা বিভাগীয় অনূর্ধ্ব-১৪ দলে।

চ্যানেল আই অনলাইনকে তানভিরের কোচ সারোয়ার ইমরান বললেন, ‘লেগস্পিনের যে বৈচিত্র্যগুলো আছে তার প্রায় সবই রপ্ত করতে চেষ্টা করছে। এখনও শেখার মধ্যে আছে। শুধু বোলিং না, ব্যাটিং-ফিল্ডিং নিয়েও কাজ হচ্ছে সমানতালে। ছেলেটা বেশ প্রতিশ্রুতিশীল। একটা একটা করে ভ্যারিয়েশন শিখছে। একবারে অনেককিছু চাপিয়ে দিচ্ছি না। আমি স্বপ্ন দেখি একদিন সে বাংলাদেশ দলে খেলবে।’

Advertisement

অমিত সম্ভাবনার গল্প শোনাতে গিয়ে সারোয়ার ইমরান জানালেন, তার একাডেমিতে রাকিব নামের আরেকজন সম্ভাবনাময় লেগস্পিনার আছে। বয়সভিত্তিক দলে খেলা কিশোরটি সিলেট সিক্সার্সের নেটে বোলিং করছে এবং দলটির কোচ ওয়াকার ইউনুসের নজরে পড়েছে।

বাংলাদেশে লেগস্পিনার এখন এক হাহাকারের নাম! কোনো লেগস্পিনার ছাড়াই তিন বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছে টিম টাইগার্স।

২০১৪ সালে উজ্জ্বল সম্ভাবনা নিয়ে এসেছিলেন জুবায়ের হোসেন লিখন। প্রথমবারের মতো টেস্ট স্কোয়াডে স্পেশালিষ্ট লেগস্পিনার হিসেবে ডাকা হয় তকে। কিন্তু ৬ টেস্টে ১৬ উইকেটে থমকে আছে তার ক্যারিয়ার।

পরে এসেছেন তানবীর হায়দার। দুই ওয়ানডে খেলেই আউট! অনূর্ধ্ব-১৯ দলের লেগস্পিনার রিশাদ হোসেনকে জাতীয় দলের অনুশীলনে রাখা হচ্ছে ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে।

একজন লেগি যে লাগবেই সেটি এখন অপ্তবাক্য। সম্প্রতি আলোচনায় আসা কয়েকজন কিশোরের মাঝে দেখা যাচ্ছে সম্ভাবনা। দীর্ঘশ্বাস ও আশা হাঁটছে পাশাপাশি। সঠিক পরিচর্যা পেলে আজকের তানভির-রাকিবরাই হয়ত একদিন বাতিঘর হয়ে জ্বলবেন লাল-সবুজের জার্সিতে।