চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পে জাপানি বিনিয়োগ প্রতারণা: টিআইবি

মাতারবাড়ির কয়লা প্রকল্পে জাপানি বিনিয়োগ এক ধরনের প্রতারণা বলে অভিযোগ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ। তাদের অভিযোগ, জলবায়ু ফান্ডের সহায়তা হিসেবে এ ঋণ দিচ্ছে জাইকা। রামপাল ও মাতারবাড়ির ক্ষতিগ্রস্তদের অর্থ দেওয়ার প্রতিটি স্তরে দুর্নীতি এবং পরিবেশগত প্রভাব নিরুপণে অনিয়মেরও অভিযোগ করেছে টিআইবি।

বাগেরহাটের রামপালে ১ হাজার ৩শ ২০ মেগাওয়াটের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র চালুর কথা ২০১৯ সালে। একই ক্ষমতার আরেক বিদ্যুৎকেন্দ্র ২০২১ চালু হবে কক্সবাজারের মাতারবাড়িতে। এসব বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের জন্য অধিগ্রহণ করা জমির মালিকদের ক্ষতিপূরণ পেতে ৩ থেকে ১০ শতাংশ পর্যন্ত ঘুষ দিতে হয়েছে। কোথাও বাজারদরের চেয়ে অনেক কম আবার কোথাও চিংড়ি ঘেরের জমির নামে কয়েক গুণ বেশি দাম দেয়া হয়েছে বলে জানায় টিআইবি।

টিআইবির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়্যারম্যান সুলতানা কামাল বলেন, এই সমস্ত প্রকল্পের কারণে আমাদের জনজীবন বিঘ্ন বা বিপন্ন হওয়ার আশংকা দেখতে পাচ্ছি আমরা।

Advertisement

টিআইবির অভিযোগ, রামপালে একটি সরকারি সংস্থা আর মাতারবাড়িতে জাপানি সংস্থা পরিবেশগত প্রভাব যাচাইয়ের রিপোর্টে দিয়েছে; আর মাতারবাড়িতে জাইকার অর্থ পরিবেশ তহবিলের।

টিআইবির পরিচালক  ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, জাইকা সম্পর্কে যে তথ্য দেওয়া হয়েছে সেটা নিয়ে কোনো প্রতিবাদ তারা এখনো অব্দি করেনি। জলবায়ু পরিবর্তন তহবিল থেকে যে অর্থায়ন করা হয়েছে অফিশিয়ালি বলা হয়েছে যে সেটা জলবায়ু পরিবর্তন ফান্ড থেকে। এর যুক্তি হিসেবে তারা দেখিয়েছে সুপার ক্রিটিক্যাল টেকনোলজি। তাই কয়লা ভিত্তিক হওয়ার পরও কম কার্বন নি:সরণ হবে।

ক্ষতিগ্রস্তদের অর্থপ্রদানে স্বচ্ছতা এবং প্রভাবমুক্ত পরিবেশগত প্রতিবেদনের স্বার্থে ১২ দফা সুপারিশসহ পর্যায়ক্রমে কয়লা প্রকল্প বন্ধ করে নবায়নযোগ্য জ্বালানি নিয়ে বিদ্যুৎ সংকট মোকাবেলার পরামর্শ দিয়েছে টিআইবি।