চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কোভ্যাক্স থেকে জুন মাসে এক কোটি নয় লাখ ভ্যাকসিন পাচ্ছে বাংলাদেশ

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বল্পোন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন সরবরাহ করতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) নেতৃত্বে বৈশ্বিক উদ্যোগ কোভ্যাক্সের আওতায় এক কোটি নয় লাখ ভ্যাকসিন পাচ্ছে বাংলাদেশ। আগামী জুন মাসের আগে এ ভ্যাকসিন পাবে বাংলাদেশ।

কোভ্যাক্সের আওতায় বিশ্বজুড়ে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন সরবরাহের একটি পরিকল্পনা আজ মঙ্গলবার প্রকাশ করছে ভ্যাকসিন সরবরাহের দায়িত্বপ্রাপ্ত জাতিসংঘের শিশু তহবিল (ইউনিসেফ)।

বিজ্ঞাপন

কোভ্যাক্স প্রথম দফায় অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও অক্সফোর্ডের ২৩ কোটি সাত লাখ ডোজ ভ্যাকসিন সরবরাহ করবে। ফাইজার ও বায়োএনটেকের ১২ লাখ ডোজ ভ্যাকসিনও এর মধ্যে থাকবে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, জুনের আগে সবচেয়ে বেশি ভ্যাকসিন যে দেশগুলো পাবে, তার মধ্যে বাংলাদেশ আছে ৪ নম্বরে। এ ছাড়া অন্য দেশগুলো হলো— নাইজেরিয়া, ইন্দোনেশিয়া, পাকিস্তান ও ব্রাজিল। আর আগামী মে মাসের শেষ নাগাদ বিশ্বের ১৪২ দেশে ২৩ কোটি ৮২ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন সরবরাহ করা হবে।

কোভ্যাক্সের আওতায় প্রথম ভ্যাকসিন পেয়েছে আফ্রিকার দেশ ঘানা। কোভ্যাক্স কর্মসূচিতে ১৯৮ দেশ অংশ নিয়েছে। তবে সব দেশই প্রথম দফায় ভ্যাকসিন সরবরাহের আওতায় আসছে না।

গরিব দেশগুলো ধনীদের চেয়ে ভ্যাকসিনে অনেকাংশে পিছিয়ে রয়েছে। টিকা মজুদ করে রাখার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম গেব্রিয়াসুস গত সোমবার ধনী দেশগুলোর সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, ‘আমরা বিশ্বের সব দুর্দশাগ্রস্ত মানুষকে সুরক্ষা দিতে চাই।’

কোভ্যাক্স কর্মসূচির আওতায় জুনের আগে বাংলাদেশ পাবে এক কোটি নয় লাখ আট হাজার ভ্যাকসিন। এ ছাড়া বেশি ভ্যাকসিন পেতে যাওয়া অপর দেশগুলোর মধ্যে পাকিস্তান এক কোটি ৪৬ লাখ ৪০ হাজার, নাইজেরিয়া এক কোটি ৩৬ লাখ ৫৬ হাজার, ইন্দোনেশিয়া এক কোটি ১৭ লাখ ৪ হাজার ৮০০ একং ব্রাজিল ৯১ লাখ ২২ হাজার ৪০০ ভ্যাকসিন পাবে।

তালিকায় এর পরে পাঁচ দেশ রয়েছে। এর মধ্যে ইথিওপিয়া ৭৬ লাখ ২০ হাজার, ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব দ্য কঙ্গো ৫৯ লাখ ২৮ হাজার, মেক্সিকো ৫৫ লাখ ৩২ হাজার, মিসর ৪৩ লাখ ৮৯ হাজার ৬০০ এবং ভিয়েতনাম ৪১ লাখ ৭৬ হাজার ভ্যাকসিন পাবে।

ইরান, মিয়ানমার, কেনিয়া ও উগান্ডাও ভ্যাকসিন পাওয়ার তালিকায় রয়েছে। প্রতিটি দেশ ৩০ লাখের বেশি ভ্যাকসিন পাবে। মে মাসের শেষ দিকে ভারতও কোভ্যাক্সের ভ্যাকসিনের বড় সরবরাহ পেতে পারে।

কোভ্যাক্স কর্মসূচিতে এ বছর শেষ হওয়ার আগে ৯২ দরিদ্র দেশের ২৭ শতাংশ জনগণকে ভ্যাকসিন দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

ঘানা, আইভরি কোস্ট, দক্ষিণ কোরিয়া, ভারত ও কলম্বিয়া প্রথম দফায় কোভ্যাক্সের ভ্যাকসিন পেয়েছে। মঙ্গলবার নাইজেরিয়া, অ্যাঙ্গোলা, কম্বোডিয়াতেও কোভ্যাক্সের প্রথম দফার ভ্যাকসিন পৌঁছেছে।

বুধবার সেনেগালে প্রথম দফায় ভ্যাকসিন পৌঁছানোর কথা রয়েছে। এ সপ্তাহেই আরও ২০ দেশে কোভ্যাক্সের ভ্যাকসিন পৌঁছানোর কথা।