চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কোচিং বাণিজ্য বন্ধের পক্ষে হাইকোর্টের রায়

কোচিং বাণিজ্য বন্ধে ২০১২ সালে করা সরকারের নীতিমালা বৈধ বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ রায়ের ফলে সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কোচিং বাণিজ্য বন্ধই থাকবে বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী।

শুধু সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকদের বিরুদ্ধে থাকা অভিযোগ খতিয়ে দেখতে পারবে দুদক। তবে অসন্তোষ প্রকাশ করে আদালত বলেছেন, দুদকের উচিত আদালত, কাস্টমসসহ আর্থিক খাতের দুর্নীতিগুলোকে অগ্রাধিকার দেয়া।

বিজ্ঞাপন

কোচিং বাণিজ্য সংক্রান্ত সরকারি নীতিমালার বৈধতা চ্যালেঞ্জ ও কয়েকজন শিক্ষককে বদলি সংক্রান্ত রুলের শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার রায় ঘোষণা করেন বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

বিজ্ঞাপন

দু’পক্ষের বক্তব্য এবং এমিকাস কিউরিয়াদের যুক্তি বিচার বিশ্লেষণ করে আদালত বলেন, আধুনিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় সরকার পরিপত্র, বিজ্ঞপ্তি, নীতিমালা করতে পারে; এজন্য তাৎক্ষণিক আইন পাশের প্রয়োজন নেই। কারণ এটা সরকারের সাংবিধানিক অধিকার।

আইনের ১৬৬ ধারা অনুযায়ী দুদক কী করতে পারবে সে সম্পর্কে বলেন হাইকোর্ট।দুদকের কর্মপদ্ধতি নিয়েও মন্তব্য করেন আদালত।

রায়ে হাইকোর্ট কোচিং বাণিজ্যের সাথে জড়িত সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের বদলিকে বৈধ বলেছেন।

আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। রিটের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার তানিয়া আমীর। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মোখলেছুর রহমান।