চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কে-টু পর্বতে এখনও নিখোঁজ মুহাম্মদ আলী সাদপারা

বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ কে-টুতে অভিযানে গিয়ে পাকিস্তানের মুহাম্মদ আলী সাদপারাসহ আরও দুইজন পর্বতারোহী সাতদিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন।

পাকিস্তানি সামরিক হেলিকপ্টারগুলো তল্লাশি অব্যাহত রাখলেও তাদের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা ক্রমেই ক্ষীণ হয়ে আসছে বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

সাদপারা পাকিস্তানের অন্যতম সবচেয়ে খ্যাতিমান পর্বতারোহী। তিনি বিশ্বের আটটি সর্বোচ্চ শৃঙ্গ জয় করেছেন। এবারের যাত্রায় সঙ্গে তার ২০ বছর বয়সী ছেলেও ছিল, কিন্তু ছেলের অক্সিজেন মাস্কে ত্রুটি দেখা দিলে তাকে নিচে নেমে যেতে বলেছিলেন সাদপারা।

‘বোটলনেকের’ নিচে ক্যাম্পে ছেলে নিচে নেমে আসলেও আলী সাদপারা (৪৫), আইসল্যান্ডের জন স্নোরি (৪৭) ও চিলির হুয়ান পাবলো মোরকে (৩৩) এখনও নিখোজ।

গত শুক্রবার ৫ ফেব্রুয়ারি শৃঙ্গটির আরোহণ পথের সবচেয়ে বিপজ্জনক অংশ বলে বিবেচিত ‘বোটলনেক’ এলাকায় দেখা গিয়েছিল তিনজনকে। এই ‘বোটলনেক’ ৮ হাজার ৬১১ মিটার (২৮ হাজার ২৫১ ফুট) উচ্চতার পবর্ত শৃঙ্গটির মধ্যে থাকা খাড়া সংকীর্ণ একটি হিমবাহের খাত।

হেলিকপ্টার সর্বোচ্চ যতো উচ্চতায় উঠতে পারে এটি তার চেয়েও একটু বেশি ওপরে অবস্থিত।

৫ ফেব্রুয়ারি বুলগেরিয়ার নাগরিক আতানাস স্কাতভের লাশ হেলিকপ্টারে করে তুলে আনা হয়। তিনি কে-টুতে ওঠার চেষ্টা করার সময় পড়ে গেছেন বলে বিশ্বাস সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের।

১৬ জানুয়ারি নেপালের ১০ জনের একটি পর্বতারোহী দল প্রথমবারের মতো শীতকালে কে-টুর চূড়ায় উঠে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করেন।

ওই একইদিন স্পেনের পর্বতারোহী সেরহিও মিঙ্গোতে (৪৯) বেইস ক্যাম্পে ফিরে আসার সময় পিছলে হিমবাহের খাদে পড়ে নিহত হন।

ওই একই মাসে মার্কিন পর্বতারোহী অ্যালেক্স গোল্ডফার্ব-রুমিয়ানজেভ নিকটবর্তী আট হাজার ৪৭ মিটার উঁচু আরেকটি চূড়ায় উঠতে গিয়ে মারা যান।

‘নিষ্ঠুর পবর্ত’ হিসেবে পরিচিত কে-টুতে ২০০৮ সালে তুষারধসে দুই দিনে ১১ জন পর্বতারোহীর মৃত্যু হয়েছিল।