চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কে এই সালমা, কেন গ্রেপ্তার হয়েছিলেন?

গত কয়েকদিন ধরে বিশ্ব মিডিয়ায় আলোচিত নাম মিশরের মডেল সালমা এলশিমি। মূলত তাকে গ্রেপ্তারের পরেই আলোচনায় আসেন। দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়ে তার নাম। কিন্তু কী কারণে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন তিনি?

নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে নিজের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশকিছু ছবি প্রকাশ করেন সালমা। আর ছবিগুলোই কাল হয় তার জন্য। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, ছবিগুলো মিশরের ঐতিহাসিক সাকারা ন্যাক্রোপলিস এর সামনে আবেদনময়ী ভঙ্গিতে ক্লিওপেট্রার রূপে ছবি তুলেছেন তিনি। আর এই ক্লিওপেট্রা হচ্ছেন প্রাচীন মিশরের টলেমি রাজত্বের প্রভাবশালী সম্রাজ্ঞী!

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

মূলত মিশরের অন্যতম ‘আইকন’ এই সম্রাজ্ঞীকে নিয়ে এরকম ‘অবিবেচনা প্রসূত’ কাজের জন্যই প্রথমে সমালোচনার মুখে পড়েন সালমা। পরবর্তীতে বিষয়টি তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ আনে মিশরের প্রত্নতাত্ত্বিক ও ট্যুরিজম বিভাগ। বলা হয়, আন্তর্জাতিক ভ্রমণ নীতিমালা বিকৃত করে সালমা আর তার আলোকচিত্রীকে দিয়ে ছবিগুলো তুলেছেন।

বিজ্ঞাপন

শুধু তাই নয়, দেশটির ট্যুরিজম পুলিশের অনুমতি না নিয়েই ঐতিহাসিক সাকারা ন্যাক্রোপলিসের সামনে ফটোশ্যুট করেছেন। ট্যুরিজম পুলিশের বরাতে দেশটির গণমাধ্যম বলছে, কালো বোরকায় আবৃত ট্যুরিস্টের বেশে এই প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানটিতে প্রবেশ করেন সালমা, সেসময় সঙ্গে ছিলেন তার ফটোগ্রাফার মোহাম্মদ হোসেন। কিন্তু ভেতরে গিয়েই সালমা তার বোরকাটি খুলে ফেলেন এবং পূর্ব পরিকল্পনা মতো পোশাকে ছবি ও ভিডিও করেন।

সালমার এমন ফটোশুটকে স্থানীয়রা ‘কাণ্ডজ্ঞানহীন’ ও ‘ফারাও সভ্যতার পোশাকের অসভ্য সংস্করণ’ বলে মন্তব্য করেন। সামাজিক মাধ্যমে ব্যাপক রোষের মুখেও পড়েন সালমা। পরবর্তীতে ফটোশুটের জন্য তাকে ও ফটোগ্রাফারকে গ্রেপ্তার করে মিশর পুলিশ, যদিও পরে ছেড়ে দেয়া হয় তাদের।

এদিকে মিশরের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়ে দেয়, এখন থেকে মিশরের ঐতিহাসিক স্থাপনাগুলোর সামনে ছবি তুলতে আগে থেকে ট্যুরিজম পুলিশের অনুমতি লাগবে।

বিজ্ঞাপন