চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি সাউথ আফ্রিকানদের মনোভাব ‘নষ্ট’ হয়ে গেছে

তোপ দেগেছেন সাউথ আফ্রিকার সাবেক ব্যাটসম্যান অ্যাশলে প্রিন্স। কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি তার দেশের মনোভাব এখনো পাল্টায়নি দাবি করে গত একদশকে দলের একতা ও নিয়ম নষ্ট হওয়ার কথা লিখে টুইটারে ঝড় তুলেছেন তিনি।

ঘটনার প্রেক্ষিতে একটি উদাহরণ টেনেছেন বর্তমানে ঘরোয়া দল কোবরার প্রধান কোচের দায়িত্বে থাকা প্রিন্স। ২০০৫-০৬ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়া সফরে পার্থ টেস্টে দর্শকসারি থেকে তাকে, মাখায়া এন্টিনি ও গারনেট ক্রুগারকে লক্ষ্য করে বর্ণবাদী মন্তব্য করা হয়েছিল বলেছেন। তিনজনই কৃষ্ণাঙ্গ ক্রিকেটার। এমনকি সাদা চামড়ার খেলোয়াড়রা, বিশেষ করে শন পোলক ও জাস্টিন ক্যাম্পদের প্রতিও অভব্য আচরণ করা হয়েছিল বলছেন এ বাঁহাতি ওপেনার।

বিজ্ঞাপন

ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকা (সিএসএ) থেকে তখন আইসিসিকে অভিযোগ জানানো হলেও ম্যাচ রেফারি ক্রিস ব্রড খেলোয়াড়দের অভিযোগ মাথায় নেননি বলে লিখেছেন প্রিন্স, ‘লাঞ্চের সময় আমরা যখন দলের নেতাদের কাছে এই অভিযোগ নিয়ে গেলাম, আমাদের বলা হল, ‘‘আহ, এখানে অল্পকিছু মানুষ এমন করছে, সবাই না। যাও খেলতে যাও।’’

বিজ্ঞাপন

সেসময় প্রোটিয়াদের কোচ ছিলেন মিকি আর্থার। বর্তমানে পাকিস্তানের দায়িত্বে থাকা এ কোচ অবশ্য প্রিন্সের বিপরীতে কথা বলছেন। প্রিন্সদের অভিযোগ দল গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছিল বলে ক্রিকইনফোকে জানিয়েছেন তিনি।

‘আমরা এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছিলাম। দল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কাছে অভিযোগ তোলার পর বাউন্ডারি লাইনে অতিরিক্ত নিরাপত্তাকর্মীর ব্যবস্থা করা হয়েছিল। আমার যতটুকু মনে আছে, পুরো ঘটনায় দল ভেঙে পড়েছিল। আমার মনে পরে না কোনো খেলোয়াড় বলেছে, ‘‘যা হয়েছে, চলো খেলতে যাই।’’ এ ঘটনা আমাদের পুরো দলকে আক্রান্ত করেছিল।’

পুরো বিশ্বের মতো ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার্স’ আন্দোলনে সমর্থন দিয়েছেন আর্থার, ‘যাইহোক না কেনো, বর্ণবাদের কোনো জায়গা কোথাও নেই। পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কায় বর্ণ-জাত, রঙ-ধর্ম যেমন হোক না কেনো, সবাই একসঙ্গে দেশের জন্য খেলে।’