চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কুমিল্লায় ২৪ ঘণ্টায় ৩০১ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে

কুমিল্লায় গত ২৪ ঘন্টায় আরও ৩০১ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। সব মিলিয়ে গত কয়েকদিনে কুমিল্লার ১৭টি উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনকৃত প্রবাসীর সংখ্যা ৬১৩ জন হলো। তবে তাদের মধ্যে ৩ জনকে ছাড়পত্র দিয়েছে কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়।

কুমিল্লা জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো: নিয়াতুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি জানান: জেলার প্রতিটি উপজেলায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেসহ উপজেলা প্রশাসনকে সচেতনতার জন্য নানা ধরনের পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। বিদেশ ফেরত যারা আছেন তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নির্দেশ কেউ না মানলে সেক্ষেত্রে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ উপজেলা প্রশাসন যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ইতোমধ্যে কয়েক স্থানে জরিমানা করা হয়েছে।

জেলা সিভিল সার্জন অফিস থেকে জানা যায়, জেলার মুরাদনগর উপজেলায় সবচেয়ে বেশি হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় হোম কোয়ারেন্টাইনের সংখ্যা ১৭৬ জন, যা গতকাল ছিলো ৪৯ জন। এ উপজেলায় সব মিলিয়ে কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে ২২৫ জনকে। আদর্শ সদর উপজেলায় মোট হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ২৪ জন। তিতাস উপজেলায় ২৪ ঘণ্টায় হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে ৩৫ জনকে। গতকাল এ সংখ্যা ছিলো ৪৪ জন। এ উপজেলায় মোট হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার সংখ্যা ৭৮ জন। সদর দক্ষিণ উপজেলায় মোট হোম কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে ৪৭ জনকে। মনোহরগঞ্জ উপজেলায় মোট হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে ৪০ জনকে।  লালমাই উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয় ৩৩ জনকে। নাঙ্গলকোট উপজেলায় মোট হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ২৭ জন। দাউদকান্দি উপজেলায় মোট কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে ২২ জনকে। চান্দিনা উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে ২২ জন। মেঘনা উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনকৃত ১৭ জন। হোমনা উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ১৬ জন। চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে ১৪ জন। বুড়িচং উপজেলায় মোট হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে ১১ জন। ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৯জন। বরুড়া উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৮ জন। দেবিদ্বার উপজেলায় মোট হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৬ জন।

বিজ্ঞাপন