চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কারখানায় স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে কিনা তদারকি করছে বিজিএমইএ

তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সদস্যভুক্ত কারখানাগুলো যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে কি-না তা নিবিড়ভাবে তদারকি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিজিএমইএর সভাপতি ফারুক হাসান।

মঙ্গলবার এক ভিডিও বার্তায় তিনি এ কথা জানান।

বিজ্ঞাপন

এই তদারকিতে সন্তোষজনক ফলাফল পাওয়া যাচ্ছে বলে জানিয়ে ফারুক হাসান বলেন, করোনার প্রকোপ ঠেকাতে সরকার নারায়নগঞ্জ, গাজীপুরসহ ৭ জেলায় আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করেছে। তবে দেশের অর্থনীতির স্বার্থে পোশাক কারখানাকে লকডাউনের আওতামুক্ত রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, আইএলও ও বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শের আলোকে বিজিএমইএ সদস্যভুক্ত কারখানাগুলোর জন্য স্বাস্থ্যবিধি প্রটোকল প্রণয়ন করা হয়েছে। আমাদের কারখানাগুলোর এসব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে।

তারপরও কারখানাগুলো যথাযথ নিয়ম মেনে চলছে কি-না তা দেখার জন্য বিজিএমইএর পক্ষ থেকে প্রতিনিয়ত নিবিড়ভাবে মনিটরিং করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে আমরা সন্তোষজনক ফলাফল পাচ্ছি।

শ্রমিকদের করোনার হার প্রায় শূন্যের কোটায় উল্লেখ করে বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের করোনা পরীক্ষার জন্য গাজীপুরের চন্দ্রায় বিশ্বমানের ল্যাব স্থাপন করেছে। চট্টগ্রামেও আরেকটি ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। এর ফলে শ্রমিকদের করোনার হার প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে।

তারপরও করোনার বর্তমান অবস্থার ভয়াবহতা উপলব্ধি করে কারখানাগুলোতে আরও কঠোর মনিটরিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এ ক্ষেত্রে সরকার যদি আরও স্বাস্থ্য সংক্রান্ত গাইড লাইন দেয়, তাহলে তা মেনেই আমরা কারখানা চালু রাখব।

বিজ্ঞাপন