চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কানাডায় নাট্যজন জামালউদ্দিন হোসেন ও তার স্ত্রীর সাক্ষাৎকার

বরফাচ্ছন্ন কানাডা বছরের বেশির ভাগ সময় বরফে আচ্ছাদিত থাকলেও পাহাড় ঘেরা কানাডা নগরী ছড়িয়ে আছে এক অনন্য সৌন্দর্যে। বাহারী গাছ আর ফুলের ডালা বিছানো পাতাগুলো রাতের আলোতে সুন্দর সাজানো কানাডা হয়ে ওঠে এক অচেনা নগরী। এখানে স্বল্প সময়ে দেখা যায় গ্রীষ্ম (সামার)। প্রবাসী বাঙালি হৃদয়ে তখন ভরে ওঠে মিষ্টি হাওয়ায় এক অনাবিল আনন্দ।
প্রকৃতি যখন এমনি দৃশ্যের হাওয়ায় দুলতে দুলতে এগিয়ে চলে ঠিক তখনি আবার আষাঢ় শ্রাবণে ভেসে আসা মেঘগুলো অবুঝের মত বৃষ্টি নিয়ে নেমে আসে ধরায়। প্রকৃতির এমনি এক সময়ে দেখা হয় কানাডার ক্যালগেরিতে বাংলাদেশের স্বনামধন্য প্রথিতযশা নাট্যজন জামালউদ্দিন হোসেন আর তার সহধর্মিনী রওশন আরা দম্পতির সঙ্গে। ক্যালগেরিতে পুত্র তপুর বাসায় বেড়াতে আসা এই দম্পতির সঙ্গে কথা হলো নাটক নিয়ে।

কেমন আছেন ?
জামাল উদ্দিন হোসেন:
খুব ভাল আছি। ঠান্ডার দেশ সর্ম্পকে যে ধারনা ছিল তা নেই। সুন্দর সুন্দর মনোরম দৃশ্য অবলোকন করছি।
রওশন আরা হোসেন:
খুব ভাল আছি। খুব ভাল লাগছে নাতী-নাতনীদের নিয়ে পাহাড়ে ঘেরা ক্যালগেরির মনোরম দৃশ্য অবলোকন করছি।

বিজ্ঞাপন

আপনাদের পরিবার সম্পর্কে বলুন:

জামাল উদ্দিন হোসেন: আমাদের এক মেয়ে এক ছেলে। মেয়ে আমেরিকাতে বসবাস করছে আর ছেলে তপু ক্যালগেরির মাউন্ট রয়েল ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষাকতা করছে। এই বয়সে নাতী-নাতনী আর ওদের নিয়ে বেশ ভাল আছি।  শুকরিয়া করছি পরম করুণাময়ের কাছে।

উল্লেখ্য তপু দীর্ঘদিন ধরে কানাডায় বসবাস করছে। বাংলাদেশের “নাগরিক নাট্যঙ্গন অনাসম্বল” এর একজন বলিষ্ঠ নাট্যকর্মী ও অভিনেতা। তারই আমন্ত্রণে তার পিতা-মাতা জামাল উদ্দিন হোসেন ও রওশন আরা হোসেন এখন ক্যালগেরিতে। তপু ক্যালগেরির স্বনামখ্যাত “মুক্ত বিহঙ্গ” থিয়েটারের হয়ে কাজ করছে।

কতদিন প্রবাস জীবনে ?
জামাল উদ্দিন হোসেন: ২০০৬ সাল থেকে আমেরিকাতে বসবাস করছি।  প্রথম আমেরিকাতে আসি ১৯৯৪ সালে মেয়ের কাছে। এর পর স্থায়ী ভাবে ২০০৬ সালে আমেরিকাতে চলে আসি। এসে ১১ বছর নিউইয়র্ক সিটির বিল্ডিং ডিপার্টমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে চাকুরী করেছি। দুই বছর ধরে এলোবামা শহরের হান্টস ভ্যালিতে। নিউইয়র্ক সিটির পাশের সিটিতেই আমার মেয়ে থাকে। ব্যক্তিগত জীবনে আমি মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার ১৯৬৫ সালে বুয়েট থেকে বেরিয়ে অনেক দিন আধা সরকারী জব করেছি। আমি মূলত ছাত্রজীবন থেকেই নাটক করি।

আপনাদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কিছু বলবেন?
জামাল উদ্দিন হোসেন:
ছাত্রজীবন থেকেই স্কুল থেকে নাটক করা শুরু হয়।
রওশন আরা হোসেন: আমি গৃহিনী। ছাত্র জীবন, স্কুল জীবন থেকে নাটক করি । রেডিওতে নাটক করতাম। আমাদের সময়ে মুসলিম পরিবারে নাটক করা ছিল আত্মহত্যার সামিল। ৬০ এর দশকে আমার বাবা আমাকে নাটক করা শিখিয়েছেন। তিনি আমার গুরু।

এক জন আরেকজনের হলেন কি ভাবে ?
জামাল উদ্দিন হোসেন:
তখন ইউনিভার্সিটিতে বার্ষিক নাটক হতো ঐ সময়ে রওশন আরা রেডিওতে নাটক করতো। বিটিভির একজন কর্মকর্তার রেফারেন্সে আমাদের সাথে রওশন আরা কাজ করতো, ঐ সূত্র ধরেই পরিচয়,পরিণয় ও পরবর্তীকালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ।
মঞ্চে শেষ কবে অভিনয় করেছেন ?
জামাল উদ্দিন হোসেন:
নিউইর্য়ক সিটিতে থাকাকালীন সময়ে দেখেছি অনেকগুলো নাটকের দল সেখানে রয়েছে। তাদের সমন্বয়ে “নাগরিক নাট্যাঙ্গন অনাসম্বল” নামে প্রতিবছর একটা করে নাটক করতাম। গত ১১ বছরে ১১টা নাটক করেছি। এছাড়াও ২০১৮ সালে আন্তর্জাতিক বাংলা উৎসব ও “মুক্তধারার” বই মেলায় আমরা স্বামী-স্ত্রী যৌথ ভাবে “বেলাশেষে” নাটক করেছি। মঞ্চে ২০১৫-১৬ তে নিউইয়ার্কে নাটক করেছি ।

নাটক কে কি ভাবে দেখেন ?
জামাল উদ্দিন হোসেন: ভালবাসার শিল্প মাধ্যম। অত্যন্ত প্রিয়। প্রচুর শ্রম দিতে হয় তবুও ভালবাসি। এত বছর ধরে নাটক করছি, মঞ্চ থেকে এখনও বিদায় নেইনি। অনেক অনেক ভালবাসা এর মধ্যে।
রওশন আরা হোসেন:

থিয়েটারকে ভাল না বাসলে এখানে থাকা সম্ভব নয়। আমি মনে করি প্রত্যক মানুষকেই শিল্পের সঙ্গে থাকা দরকার। আদর্শ নিষ্ঠাবান নাট্যকর্মী আর পাঁচ দশটা লোকের চেয়ে সম্পূর্ণ আলাদা। মনে প্রাণে বিশ্বাস করি একজন নাট্য কর্মী যে সমায়নুবর্তীতা নিষ্ঠা ও শিল্প নিয়ে কাজ করে সে কখনোই কোন খারাপ কাজের সঙ্গে জড়িয়ে পড়তে পারে না। নাটক নির্ভর করে বাস্তব অভিজ্ঞতার উপর। শিল্পের যে শিকড় তা বাস্তবে থাকতে হবে। নাটক সমাজ পরিবর্তনে বিরাট ভূমিকা রাখে।
একে অপরের সম্পর্কে বলুন:
জামালউদ্দিন হোসেন: হাসতে হাসতে–রওশন খুবই, খুবই ভাল একজন সুঅভিনেত্রী ও সুগৃহিনী।  সহআর্টিষ্ট হিসেবে অনেক কাজ করেছি, মঞ্চ আর টেলিভিশনে। নাটকের ব্যাপারে ওর কোন কম্প্রোমাইজ নেই। খুবই ডেডিকেটেড।

বিজ্ঞাপন

রওশন আরা হোসেন: অনেকক্ষণ হেসে, সবার উপরের কথা হলো,- খুবই ভাল একজন মানুষ। আমার সহযাত্রী অত্যন্ত রুচিবান, শিক্ষিত ও শিল্পিত এক কথায় অসাধারণ একজন মানুষ। আমি ওর চাওয়াগুলো অল্পতেই বুঝতে পারি। আমরা অনেক ভাল ও সুখে আছি, ছেলে-মেয়ে নাতী- নাতনীদের নিয়ে। আমার সকল দর্শকদের কাছে দোয়া চাই। নাটক থেকে এখনও বিদায় নেইনি। সব সময় মনে হয় যেন জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত নাটক করতে পারি-সেটাই হবে আমাদের পরম পাওয়া।

নাটক নিয়ে কোন স্মৃতি:
জামাল উদ্দিন হোসেন: ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আমাদের শো হবে মহিলা সমিতির মঞ্চে। আমরা সবাই রেডি হচ্ছি এসময় খবর এলো বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে গ্রেনেড হামলা। তৎকালীন মহিলা সমিতির প্রেসিডেন্ট আইভি রহমান গ্রেনেড হামলায় নিহত। সাথে সাথে শো ক্যানসেল করে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে ছুটে গেলাম।  সেই দৃশ্য স্মৃতি কখনো ভুলবার নয়। অরেকটা স্মৃতি কলকাতার নাট্য উৎসবে শম্ভু মিত্রের “চাঁদ বনিকের পালা” করে ব্যাপক প্রশংসা পাওয়া ও পরের দিন আনন্দ বাজার পত্রিকায় “স্বপ্নের অভিনয়” ক্যাপশনে নিউজ ছাপা হওয়ায়।

রওশন আরা হোসেন: আমাদের “শুকতারা” নাটকের ৩য় পর্ব চলছিল। ক্যান্টিন থেকে জগন্নাথ হলের ছেলেরা দ্রুত ভাত খেয়ে বসেছিল হলের টিভি রুমে নাটক দেখার জন্য আর ঐ সময়ে দূর্ঘটনায় ছাদ ধসে অনেক ছাত্র মারা গিয়েছিল। সেই স্মৃতি আজও আমাকে ভাবায়। শুকতারা নাটকের নাট্যকার মততাজ বেগমকে নিয়ে ছুটে গিয়েছিলাম ঢাকা মেডিকেলে যা দেখেছিলাম,-তা আজও আমাকে ভাবায়,-আমিও তো মা, মনে হয়েছিল ওরা আমাদের সন্তান।

আরেকটা স্মৃতি আব্দুল্লাহ আল মামুনের রচনায় জামাল উদ্দিন হোসেনের নির্দেশনায় নাটক“ বিবিসাব” অনেক কষ্ট করে ঢাকাইয়া ভাষা শিখে তবেই ঐ নাটকে অভিনয় করতে পেরেছিলাম।

কোন পার্থক্য ঐ সময়ের আর এখানকার নাটকে ?

জামাল উদ্দিন হোসেন: এখনকার মঞ্চ নাটকের স্ক্রিপটগুলো আরো উন্নত হওয়া দরকার। অনেক ব্যবধান আমাদের সময় আর এখনকার সময়ের মঞ্চ নাটক। অনেক ভাল লাগে মঞ্চ নাটক। ছোট ছোট গ্রুপগুলো অনেক ভাল করছে। যদিও তেমন মঞ্চ নাটক দেখা হয় না। অনেক নির্দেশকের বয়স হয়ে গেছে।  অনেকেই ব্যস্ত প্যাকেজ নাটক নিয়ে। গ্রুপ থিয়েটারের সেই উৎসাহ উদ্দীপনা অনেক কমে গেছে। কিছু ভাল কাজ যে হচ্ছে না তা নয়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কথায়“ ভাল জিনিস যত কম হয়, ততই ভাল”।

রওশন আরা হোসেন: আমাদের প্রচুর মেধা আছে, প্রয়োজন চর্চার। আমরা খুব সহজেই বেশি পেতে চাই, থিয়েটারের ক্ষেত্রে এই চেতনা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

জীবনের এই প্রান্তে কোন আফসোস:

জামাল উদ্দিন হোসেন: জীবনে যা চেয়েছি মনে হয় তার চেয়ে বেশি পেয়েছি। ধনী না হলেও সম্মান নিয়ে চাকরি করেছি। ২০১৩ সালে ২১শে পদক পেয়েছি। আর কি থাকতে পারে? তবে পর জনমে কন্ঠ শিল্পী হতে চাই। আমার প্রচুর দুর্বলতা কন্ঠ শিল্পীদের প্রতি। বিশেষ করে রবীন্দ্র সংগীত।

রওশন আরা হোসেন: শুধু মঞ্চে নাটকই করতে চাই। কোন আফসোস নেই। স্বামী সন্তান পরিবার নিয়ে অনেক সুখে আছি। বিদায় নেবার আগের দিন পর্যন্ত যেন মঞ্চ নাটক করতে পারি, সবাই দোয়া করবেন আমাদের জন্য।

আহসান রাজীব বুলবুল, কানাডা

Bellow Post-Green View