চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কানাডায় আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য ফেডারেল সরকারের উদ্যোগ

কানাডার ফেডারেল সরকার আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের নতুন করে ওয়ার্ক পারমিট দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে। যাতে করে তারা কানাডায় স্থায়ীভাবে বসবাসে আগ্রহী হয়।

মাল্টি-কালচারালিজমের দেশ কানাডা বরাবরই অভিবাসন প্রত্যাশীদের ক্ষেত্রে নমনীয়। কানাডার ইমিগ্রেশন সংস্থার হিসেবে প্রতিবছর প্রায় আড়াই লাখ অভিবাসী প্রত্যাশী কানাডায় পাড়ি দেয়। এছাড়াও আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের কানাডার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভর্তির জন্য রয়েছে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বর্তমানে কানাডায় যে ওয়ার্ক পারমিট কর্মসূচি চালু আছে তার আওতায় আন্তর্জাতিক পোস্ট গ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থীরা শিক্ষা শেষে তিন বছর পর্যন্ত কাজ করার সুযোগ পান। স্থায়ী নাগরিকত্বের পথ হিসেবে কর্মসূচিটিকে দেখা হয়। কানাডার অভিবাসন বিভাগের হিসাব অনুযায়ী, গত বছর যে ৬১ হাজার জনের ওয়ার্ক পারমিটের মেয়াদ শেষ হয়েছে তাদের অর্ধেক এই পথ বেছে নিয়েছেন। ওয়ার্ক পারমিটের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে অথবা শেষ হওয়ার পর্যায়ে রয়েছে এমন ৫২ হাজার আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী নতুন নীতিমালার কারণে উপকৃত হবেন।

অভিবাসন বিষয়ক মন্ত্রী মার্কো মেন্ডিসিনো বলেন, যেসব সাবেক পোস্ট গ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থীর ওয়ার্ক পারমিটের মেয়াদ এরই মধ্যে শেষ হয়ে গেছে অথবা শেষ হওয়ার পথে রয়েছে, তারা নতুন করে ওয়ার্ক পারমিটের আবেদন করতে পারবেন। এর ফলে চাকরি খুঁজে পেতে আরও ১৮ মাস তারা কানাডায় থাকার অনুমতি পাবেন।

বিজ্ঞাপন

আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের স্থায়ীভাবে কানাডায় রেখে দেওয়া সরকারের অন্যতম অগ্রাধিকার। কারণ, শ্রমিক স্বল্পতা অভিবাসীদের দিয়েই পূরণ করে থাকে কানাডা। কিন্তু মহামারির কারণে কানাডায় আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীর আগমন অস্বাভাবিকভাবে কমে গেছে। এ স্বল্পতা কাটিয়ে উঠতে সম্প্রতি বেশ কয়েকটি নীতির কথা ঘোষণা করেছেন মেন্ডিসিনো।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের প্রতি আমাদের বার্তাটা পরিস্কার। আপনারা শুধু এদেশে পড়াশোনা করুন তা নয়, আমরা চাই আপনারা এদেশে থেকেও যান।

নতুন ওয়ার্ক পারমিট কর্মসূচির আওতায় ২৭ জানুয়ারি থেকে আবেদন গ্রহণ শুরু হবে।

উল্লেখ্য কানাডায় করোনা মহামারীর কারণে এ বছর প্রচুর সংখ্যক শিক্ষার্থী ও অভিবাসী প্রত্যাশীরা সময়মতো কানাডায় আসতে পারেননি।

সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের ওয়ার্ক পারমিটের এই উদ্যোগ কানাডার শ্রমবাজারে অনেকটা ঘাটতি পূরণ করবে।