চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কলকাতায় মুক্তি পেলো হীরালাল সেন

ভারতীয় সিনেমার জনক হিসেবে বলা হয় দাদা সাহেব ফালকের নাম। তবে দাদা সাহেবেরও বহু আগে কলকাতা শহরে বসে বাংলাদেশের হীরালাল তৈরি করেছিলেন ‘আলিবাবা’। তার হাত ধরেই ভারতীয় সিনেমার পথ চলা শুরু।

মানিকগঞ্জের বকজুরিতে জন্ম নেয়া হীরালাল সেনকে নিয়ে বায়োপিক নির্মাণ করেছেন কলকাতার পরিচালক অরুণ রায়। যা শুক্রবার (৫ মার্চ) পশ্চিম বঙ্গের প্রেক্ষাগৃহগুলো মুক্তি পেতে চলেছে।

মানুষের ভুল ভাঙাতে এই সিনেমা বানিয়েছেন, এমনটাই জানালেন পরিচালক অরুণ রায়। দাদা সাহেব ফালকে ‘রাজা হরিশচন্দ্র’ বানিয়েছিলেন ১৯১৩ সালে। কিন্তু তার বছর দশেক আগে ১৯০১-১৯০২ সালে পূর্ণ দৈর্ঘ্যের নির্মাণ করেছিলেন হীরালাল সেন। তিনি মনে করেন বাঙালির এবিষয় নিয়ে প্রশ্ন তোলা উচিত।

পরিচালক আরও বলেন, প্রথম বিজ্ঞাপন বিষয়ক ছবি, ডকুমেন্টরি সবই হীরালাল সেনের হাত ধরে পথ চলা শুরু। সিনেমার ব্যবসা থেকে ইন্ডাস্ট্রি গড়ে তোলা সবই তার হাতে। অথচ ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে হীরালাল সেনের নাম নেয়া হয়না কোথাও।

বিজ্ঞাপন

১৮৬৬ সালে বাংলাদেশে জন্ম হীরালাল সেনের। অত্যন্ত ধনী পরিবারের সন্তান ছিলেন তিনি। স্থিরচিত্র তোলার প্রতি ছিল বিশেষ আগ্রহ। ১৮৯৮ সালের শুরুতে কলকাতা স্টার থিয়েটারে গিয়ে চলচ্চিত্রের প্রতি অনুরাগী হয়ে পড়েন। চলচ্চিত্রের প্রতি বিশেষ আগ্রহের কার্বনে ইংল্যান্ড থেকে আমদানি করেন ক্যামেরা। তার ভাই মতিলাল সেন খোলেন ‘রয়্যাল বায়োস্কোপ কোম্পানি’ প্রযোজনা সংস্থা।

হীরালাল সেন ডকুমেন্টারি, বিজ্ঞাপনের ছবি, থিয়েটারের দৃশ্য চলচ্চিত্রায়িত করে সংস্থাকে অন্য মাত্রায় তুলে ধরেন। কিন্তু ব্যবসায়িক বুদ্ধির অভাবে ১৯১৩ সালে কোম্পানি লাটে ওঠে। মৃত্যুর কিছুদিন আগেই ওয়্যার হাউসে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের জেরে ধ্বংস হয়ে যায় তার সারা জীবনের কাজ। ১৯১৭ সালে ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় হীরালাল সেনের। এরপর কেটে গেছে একশো বছরেরও বেশি সময়। উপেক্ষিত রয়ে গেছে তার কাজ।

ছবিতে হীরালাল সেনের চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে কিঞ্জল নন্দ-কে। এছাড়া অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করছেন শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়, শঙ্কর চক্রবর্তী, আনুশকা চক্রবর্তী, অর্ণ মুখোপাধ্যায়রা। ছবির গল্প ও চিত্রনাট্যকার পরিচালক অরুণ রায় নিজেই। ছবির সংগীত পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন ময়ূখ-মৈনাক।

ইন্দ্রজিৎ রায়ের প্রযোজনা সংস্থা ইজেল মুভিজের ব্যানারে ও আত্রেয়ি নির্মাণের উদ্যোগে তৈরি হয়েছে ‘হীরালাল’।

বিজ্ঞাপন