চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনা মহামারীর সময়ে সামনে এগিয়ে যাওয়া সাহস

চ্যানেল আই’র ২২ বছরে পদার্পণের এ সময়ে আমাদের চোখের সামনে সেলুলয়েডের মতো ভেসে উঠছে আগের একুশটি জন্মদিন উদযাপন, যেখানে প্রথমে সিদ্ধেশ্বরীর সেই ছোট অফিস এবং পরে তেজগাঁওয়ে চ্যানেল আই’র চেতনা চত্বরে ছিল সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণ। এভাবে গত দুই দশকে ১লা অক্টোবর তারিখটি বাংলাভাষী মানুষের মনের ক্যালেন্ডারে একটি উৎসবের দিন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এটা সম্ভব হয়েছে চ্যানেল আই’র জন্য মানুষের অন্তহীন ভালোবাসার কারণে। এবার ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র কিন্তু ভয়ঙ্কর এক ভাইরাসের কারণে উৎসবের সেই সম্মিলনী থেকে আমরা বঞ্চিত হচ্ছি, কিন্তু মানুষ যে শেষ পর্যন্ত অজেয় তার প্রমাণ হিসেবে প্রায় অনেকটা ঘরবন্দি জীবনের এ সময়ে এবারও জন্মদিনের উৎসব আয়োজন থাকছে যদিও সেটা শুধুই চ্যানেল আই’র পর্দায়।

আমাদেরকে ভালোবাসার মানুষদের সরাসরি এবার আমরা স্বাগত জানাতে পারছি না, কিন্তু শুভেচ্ছার কোনো কমতি নেই। নানা মাধ্যমে– সেই আগের আমলের মতো চিঠিতে, ই-মেইলে এবং এখনকার এ সময়ে ডিজিটাল যতো মাধ্যম আছে তার সবগুলোতেই মানুষ আমাদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এবং জানাচ্ছেন। তাদের শুভেচ্ছা এবং ভালোবাসায় আমরা আপ্লুত। ঠিক কী বলে আমাদের কোটি কোটি দর্শক এবং শুভানুধ্যায়ীদের কৃতজ্ঞতা জানাবো সেই ভাষা আমাদের জানা নেই। কবিগুরুর ভাষায় বলতে হয়: গ্রহণ করেছো যতো, ঋণী ততো করেছো আমায়। ২২ বছরে পদার্পণের এ সময়ে আমরা আমাদের দর্শক-শুভানুধ্যায়ীদের আরও একবার ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা জানাই। চ্যানেল আই’র জন্মদিনে সকলকে শুভেচ্ছা, সকলের জন্য আমাদের অতল শ্রদ্ধা এবং অন্তহীন ভালোবাসা।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

আমাদের এবারের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর মূল প্রতিপাদ্য: ‘২২-এ চ্যানেল আই, সামনে এগিয়ে যাই’। করোনা মহামারীর এ সময়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার সাহসটা আরও বেশি দরকার। বাংলাদেশের মানুষের সেই সাহসটা ছিল এবং আছে। এ সাহসের কারণেই করোনার কামড়ের পরও বাংলাদেশ এগিয়ে চলেছে। নতুন সেই যুদ্ধে সাহসের সঙ্গে নিজেকে সম্পৃক্ত করেছে চ্যানেল আই। মানুষের সমর্থন এবং সাহসে আমরা আরও এগিয়ে যাবো, সেই প্রতিজ্ঞা আমাদের আছে। যতো প্রতিকূলতাই আসুক, সময় যতো কুয়াশাচ্ছন্নই হোক– প্রিয় দর্শক, আপনাদের সঙ্গে নিয়ে আপনাদের সমর্থনে সদা সর্বদা বলবো, সামনে এগিয়ে যাই।

বিজ্ঞাপন

সামনে এগিয়ে চলার এ যাত্রায় আমরা এবার বিশেষ একটি উপহার পেয়েছি। চ্যানেল আই’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে দেশের প্রধান সকল সংবাদপত্রে যে ক্রোড়পত্র প্রকাশিত হয়েছে তাতে একটি বিশেষ নিবন্ধ লিখে আমাদেরকে কৃতজ্ঞ করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। চ্যানেল আই পরিবারের পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই, কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি।

কঠিন একটি সময়ে আমরা চ্যানেল আই’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করছি। কিন্তু, করোনাভাইরাসের অন্ধকার কাটতে শুরু করেছে এবং আলোর পথে আমাদের পথচলা চলছে। বাংলাদেশ এগিয়ে চলেছে, আমরা এগিয়ে চলেছি, সগৌরবে আমরা বলতে পারছি: ২২-এ চ্যানেল আই, সামনে এগিয়ে যাই।