চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনা: বিশ্বজুড়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা

বিশ্বজুড়ে আবার বাড়তে শুরু করেছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। সেই সাথে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। গত কয়েকদিন ধাপের ধাপের বৃদ্ধির পর শেষ ২৪ ঘণ্টায় সাড়ে ৮ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে করোনা শনাক্ত হয়েছে সাড়ে ৪ লাখের বেশি মানুষের।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৫ অক্টোবর বিশ্বব্যাপী করোনায় মৃত্যু হয়েছিল ৫ হাজার ৪৮৮ জনের। এরপর ২৬ অক্টোবর মৃত্যু বেড়ে ৭ হাজার ৭৬৬ জনে দাঁড়ায়। এর আগে সর্বশেষ ৬ অক্টোবর করোনায় মৃত্যু হয়েছিল ৮ হাজার ৫২৬ জনের।

সেই রেকর্ড ছাড়িয়ে আবারও একদিনে মৃত্যু হয় ৮ হাজার ৫৯৭ জনের। তবে এই মাসের শেষের দিকে অর্থাৎ ২৪ অক্টোবর করোনার মৃত্যু কিছুটা কমে ৫ হাজার ২২৬ দাঁড়ালেও তিনদিনের ব্যবধানে তা আবার বেড়েছে।

বিশ্বজুড়ে করোনাচিত্রে দেখা যায়, ২৫ অক্টোবর যেখানে যুক্তরাষ্ট্রে একদিনের মৃত্যু ছিল ৬৬৭ জন। তা দ্বিগুণ বেড়ে ২৪ ঘণ্টায় দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫৮৪। ফলে আবারও রাশিয়াকে ছাড়িয়ে সর্বোচ্চ মৃত্যু যুক্তরাষ্ট্রে। এদিকে রাশিয়ায় একদিনে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ১২৩ জনের।

অন্যদিকে করোনা পরিস্থিতি অনেক দেশে সামলে উঠলেও আবার এর সংক্রমণ এবং মৃত্যু বাড়ছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ ভারতেও। দেশটিতে একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৭৩৪ জন। যেখানে ১৮ অক্টোবর ছিল ১৮৪ জন। তা এখন বেড়ে ৭ শতাধিক।

বিজ্ঞাপন

শুধু তাই নয় নতুন করে করোনার পরিস্থিতি ভয়াবহ হচ্ছে উক্রেন, মেক্সিকো, তুরস্ক, ব্রাজিল, যুক্তরাজ্য, ফিলিপিন্স এবং রোমানিয়ার মতো দেশগুলোতেও।

বৃহস্পতিবার  সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪৯ লাখ ৮৭ হাজার ৭৬৭ জন। আর এখন পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ২৪ কোটি ৫৭ লাখ ৬৮ হাজার ৬৯২ জনের। সারাবিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়েছেন ২২ কোটি ২৭ লাখ ৫৯ হাজার ৫৪০ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪ লাখ ৭৩ হাজার ৫৮২ জনের। এর আগের দিন করোনা শনাক্ত হয় হয়েছে হয়েছে ৪ লাখ ২৬ হাজার ৯১ জনের।

করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৪ কোটি ৬৫ লাখ ৮৭ হাজার ৪৪১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ৭ লাখ ৬১ হাজার ৮৪২ জন মানুষ মারা গেছেন।

এছাড়া, ভারতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩ কোটি ৪২ লাখ ৩১ হাজার ২০৭ জনের। মারা গেছেন ৪ লাখ ৫৬ হাজার ৪১৮ জন।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর গত বছরের ১১ মার্চে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে।

বিজ্ঞাপন