চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনা: আবারো মক্কা ছাড়া পুরো সৌদিতে কারফিউ শিথিলের মেয়াদ বৃদ্ধি

চলমান কারফিউ শিথিলের মেয়াদ আবারো বৃদ্ধি করেছে সৌদি সরকার তবে এবারও শিথিলের আওতায় নেই পবিত্র নগরী মক্কা। আগের মতোই ২৪ ঘণ্টা কারফিউ বলবৎ থাকবে এই পবিত্র নগরীতে এছাড়া ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ২৩ মে থেকে ২৭ মে ২০২০ পর্যন্ত পুরো সৌদিতে ২৪ ঘণ্টার কারফিউ।

বুধবার সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হতে নিম্নোক্ত নির্দেশনা জারি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সৌদি প্রেস এজেন্সি এসপিএ।

বিজ্ঞাপন

নির্দেশনা অনুযায়ী ১৪ মে হতে ২২ মে পর্যন্ত সময়ে সকল বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সম্পূর্ণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে তবে সেলুন, বিনোদন কেন্দ্র, সিনেমা ইত্যাদি সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে।

বিজ্ঞাপন

এ সময়ে পবিত্র মক্কা নগরী ছাড়া পুরো সৌদিতে সকাল নয়টা হতে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত আট ঘণ্টার জন্য সকল স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলাফেরা করা যাবে।

পবিত্র মক্কা নগরীতে পূর্বের মতই ২৪ ঘণ্টার কারফিউ বলবৎ থাকবে।

এক শহর হতে অন্য শহর, এক প্রদেশ হতে অন্য প্রদেশ এবং পূর্ব ঘোষিত কিছু নির্দিষ্ট কোয়ারিন্টিন এলাকা হতে বের হওয়া এবং এসব শহর ও প্রদেশে প্রবেশ করা বন্ধ থাকবে।

২৩ মে ২৭ মে ঈদের ছুটির সময়ে পুরো সৌদি আরবে ২৪ ঘণ্টা কারফিউ বলবৎ থাকবে।

বিজ্ঞাপন

এসময়ে সকলকে সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে চলতে হবে। ৫ জন কিংবা ততোধিক ব্যক্তি একত্রিত হওয়া যাবেনা এবং সব ধরনের জমায়েত নিষিদ্ধ থাকবে। নিষিদ্ধকৃত কার্যক্রম এর মধ্যে আরো রয়েছে ঘরে ইস্তেহারা, মাজরা, একের অধিক পরিবার একত্রিত হওয়া যাবে না। সামাজিক জমায়েতে কোন এলাকায় সকলে অথবা কিছু মানুষ অর্থাৎ পাঁচের অধিক কোন ঘরে, নির্মাণাধীন বাড়িতে, বিনোদনকেন্দ্রে উন্মুক্ত স্থানে একত্রিত হতে পারবেনা।

বলদিয়া বা কোন বড় প্রতিষ্ঠান কর্মীদের বেলায় তাদের নিজস্ব ক্যাম্প ছাড়া অন্য কোন ঘরে বা ক্যাম্পে অথবা নির্মাণাধীন কোন বাড়িতে একত্রিত হতে পারবেনা।

ঈদ বা অন্যান্য ছুটির সময় কোন ধরনের আনন্দ অনুষ্ঠান, শোক প্রকাশের অনুষ্ঠান, সভা বা সম্মেলন করা যাবেনা।

এসব নির্দেশ প্রথমবার অমান্য করা ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ১০ হাজারের জরিমানা থেকে ৫০ হাজার রিয়াল পর্যন্ত জরিমানার বিধান রয়েছে।

দ্বিতীয়বার এবং তৃতীয় বার একই বিধান লংঘন করলে পূর্বের জরিমানা দ্বিগুণ জরিমানা করা হবে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি অথবা প্রতিষ্ঠানকে।

এ ধরনের অবৈধ জমায়েতে যে শরীফ হয় অথবা জমায়াতের জন্য অন্যকে আহবান করে অথবা জমায়াতের জন্য অনুঘটক হিসেবে কাজ করে তাকে আইন ভঙ্গকার হিসেবে গণ্য করা হবে।

উল্লেখিত জমায়েতে কেউ অংশগ্রহণ করলে কিংবা অন্য কাউকে অংশগ্রহণ করার জন্য উৎসাহিত করা হলে তাহাকে ৫ হাজার থেকে ১০ হাজার রিয়াল পর্যন্ত জরিমানা করা হবে।

এইধরনের কোনো জমায়াত, আনন্দ অনুষ্ঠান ,শোকসভা হতে দেখলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ৯৯৯ এ কল করে অভিযোগ জানানোর জন্য বলা হয়েছে।