চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যুর নতুুন রেকর্ড

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৫৮

কোভিড-১৯ সংক্রমণের ৫০৬তম দিনে দেশে করোনাভাইরাসে সর্বোচ্চ ২৫৮ জনের মৃত্যুতে নতুন রেকর্ড হয়েছে। গতকাল রেকর্ড ২৪৭ জনের মৃত্যু হয়।

এরআগে গতকাল ২৬ জুলাই দেশে সর্বোচ্চ শনাক্ত ছিল ১৫ হাজার ১৯২ জন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডা. নাসিমা সুলতানার সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় (অ্যান্টিজেন টেস্টসহ) ৫২ হাজার ৪৭৮টি নমুনা পরীক্ষায় ১৪ হাজার ৯২৫ জন এই ভাইরাসে শনাক্ত হয়েছেন। এই সময়ে পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ২৮ দশমিক ৪৪ শতাংশ।

তবে শুরু থেকে মোট পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৮১ শতাংশ।

সরকারী ব্যবস্থাপনায় এখন পর্যন্ত ৫৫ লাখ ৫৫ হাজার ২০১ নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, বেসরকারী ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ২০ লাখ তিন হাজার ৫১০টি নমুনা। অর্থাৎ, মোট পরীক্ষা করা হয়েছে ৭৫ লাখ ৫৮ হাজার ৭১১টি নমুনা। এর মধ্যে শনাক্ত হয়েছেন ১১ লাখ ৯৪ হাজার ৭৫২ জন। তাদের মধ্যে ২৪ ঘণ্টায় ১২ হাজার ৪৩৯ জনসহ মোট ১০ লাখ ২২ হাজার ৪১৪ জন সুস্থ হয়েছেন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৫ দশমিক ৫৮ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

গত ২৪ ঘণ্টায় যে ২৫৮ জন মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের মধ্যে ১৩৮ জন পুরুষ ও ১২০ জন নারী। তাদের মধ্যে ২৪১ জনের হাসপাতালে (সরকারিতে ১৬৫ জন, বেসরকারিতে ৫৫ জন) ও বাড়িতে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও হাসপাতালে মৃত্যু অবস্থা এসেছেন দু’জন। তারাসহ মৃতের মোট সংখ্যা ১৯ হাজার ৭৭৯ জন। মোট শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৬৬ শতাংশ।

এখন পর্যন্ত সরকারি হাসপাতালে মারা গিয়েছেন ১৭ হাজার ৪১৬ জন, যার শতকরা হার ৮৮ দশমিক পাঁচ শতাংশ। বেসরকারি হাসপাতালে মারা গিয়েছেন এক হাজার ৮৩১ জন, যার শতকরা হার নয় দশমিক ২৬ শতাংশ। বাসায় ৫০৯ জন মারা গিয়েছেন, যার শতকরা হার দুই দশমিক ৫৭। এছাড়াও মৃত অবস্থায় হাসপাতালে এসেছেন ২৩ জন, যার শতকরা হার দশমিক ১২ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, এখন পর্যন্ত ১৩ হাজার ৪৭৮ জন পুরুষ মারা গেছেন যা মোট মৃত্যুর ৬৮ দশমিক ১৪ শতাংশ এবং ছয় হাজার ৩০১ জন নারী মৃত্যুবরণ করেছেন যা মোট মৃত্যুর ৩১ দশমিক ৮৬ শতাংশ।

বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত ২৫৮ জনের মধ্যে ১১ থেকে ২০ বছর বয়সী দু’জন, একুশ থেকে ত্রিশ বয়সী আট জন, ত্রিশোর্ধ্ব ১৬ জন, চল্লিশোর্ধ্ব ৩১ জন, পঞ্চাশোর্ধ্ব ৫৪ জন এবং ষাটোর্ধ্ব ৭৮ জন, সত্তরোর্ধ্ব ৫০ জন, আশি উর্ধ্ব ১৭ এবং নব্বই ঊর্ধ্ব দু্’জন।

আর বিভাগওয়ারী হিসাবে ঢাকা বিভাগে ৮৪ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৬১ জন, রাজশাহী বিভাগে ২১ জন, খুলনা বিভাগে ৫০ জন, বরিশাল বিভাগে ১৩ জন, সিলেট বিভাগে সাত জন, রংপুর বিভাগে ১১ জন ও ময়মনসিংহ বিভাগে ১১ জন।

করোনাভাইরাসে বিশ্বের ২১৫টি দেশ ও অঞ্চলে এখন পর্যন্ত ১৯ কোটি ৫৫ লাখেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে মারা গেছেন ৪১ লাখ ৮৭ হাজারের বেশি মানুষ। তবে সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ১৭ কোটি ৭৩ লাখের বেশি।