চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনায় পরামর্শ ছাড়া ক্লোরোকুইন খেয়ে মৃত্যু

করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে ক্লোরোকুইন ফসফেট ওষুধ খেয়েছিলেন এক দম্পতি। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া এভাবে ওষুধ খেয়ে মারা গেছেন যুক্তরাষ্ট্রের আরিজোনার ওই নাগরিক, তার স্ত্রীর অবস্থাও গুরুতর।

এমন তথ্য জানিয়েছে হাসপাতাল ব্যবস্থা নিয়ে কাজ করা যুক্তরাষ্ট্রের অলাভজনক প্রতিষ্ঠান ব্যানার হেলথ।

বিজ্ঞাপন

এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মন্তব্য করেছিলেন, কোভিড-১৯ চিকিৎসায় ক্লোরোকুইন সম্ভাব্য ওষুধ হতে পারে। তারপরই এমন ঘটনা ঘটলো।

ব্যানার হেলথ জানায়, ক্লোরোকুইন অ্যাকুরিয়ামের ফিশ ট্যাংক পরিস্কার করার জন্যও ব্যবহৃত হয়। ম্যালেরিয়া, লিউপাস ও রিমাটয়েড আর্থ্রাইটিস চিকিৎসার জন্য ক্লোরোকুইনকে অনুমোদন দেয় ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফএডিএ)।

ব্যানার হেলথ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ওষুধ এমনকি ভুল ওষুধ বা বাড়ির জিনিসপত্র এই ভাইরাসের চিকিৎসা বা প্রতিরোধে সক্ষম নয়।

কোভিড-১৯ নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে মানুষ এই ভাইরাসের চিকিৎসা ও প্রতিরোধের জন্য নতুন নতুন পথ খুঁজে চলছে। তাই বলে নিজে নিজে ওষুধ খাওয়া কখনোই সঠিক নয়-এমনটা মন্তব্য করেছেন ব্যানারের পয়জন অ্যান্ড ড্রাগ ইনফরমেশন সেন্টারের মেডিক্যাল ডিরেক্টর ড. ড্যানিয়েল ব্রুকস।

বিজ্ঞাপন

তবে আরিজোনার ষাটের কোঠার ওই দম্পতি কিভাবে ক্লোরোকুইন খেয়েছিলেন তা বিস্তারিত জানায়নি এবং কোন হাসপাতালে তাদের চিকিৎসা দেওয়া হয় তাও জানানো হয়নি।

ক্লোরোকুইন খাওয়ার আধাঘণ্টার মধ্যেই ওই দম্পতির শরীরে প্রতিক্রিয়া তৈরি হতে শুরু করে। পরে তাদের পার্শ্ববর্তী ব্যানার হেলথ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

শনিবার এক টুইটে ট্রাম্প লিখেন, হাইড্রোক্লোরোকুইন ও অ্যাজিথ্রোমিসিন চিকিৎসার ইতিহাস বদলের একটি বড় সুযোগ আছে। তার আগের কিছু গবেষণা জানিয়েছিলো ভাইরাসের বিরুদ্ধে এই ওষুধটি কার্যকর হতে পারে। কিন্তু ট্রাম্পের মন্তব্যের পরে স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলেন, আরো বেশি গবেষণা দরকার আছে।

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. অ্যান্থনি ফাওসি বলেন,  হুট করে সেটা কাজ করতে পারে, কিন্তু আমার দায়িত্ব বৈজ্ঞানিকভাবে ওষুধটা কাজ করে কিনা সেটা প্রমাণ করা। হোয়াইট হাউজের করোনা ভাইরাস টাস্ক ফোর্সে দায়িত্ব পালন করেন ফাওসি।

ট্রাম্পের এই বক্তব্যের পরে তিন জনের শরীরে এই ওষুধের ওভারডোজ দেওয়া হয়। পরে স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ক্লোরোকুইন নিয়ে হুশিয়ারি বার্তা দেয়।

ব্যানার হেলথ জানায়, স্বাস্থ্য কর্মীদের হাসপাতালে থাকা রোগিদের ক্লোরোকুইন না দেওয়ার জন্য দৃঢ়ভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি।

গত ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের উহানে প্রথম শনাক্ত হওয়া করোনা ভাইরাস এখন বৈশ্বিক মহামারি। এতে সারাবিশ্বে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত ৩ লাখ ৮২ হাজারেরও বেশি মানুষ। মারা গেছেন ১৬ হাজার ৫৬৯ জন। এছাড়াও চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন লক্ষাধিক মানুষ।