চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনায় দরিদ্র হতে পারে ৬ কোটি মানুষ: বিশ্বব্যাংক

করোনাভাইরাস মহামারীতে বিশ্বজুড়ে প্রায় ৬ কোটি মানুষ চরম দরিদ্র হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে বিশ্বব্যাংক।

সংস্থাটির প্রেসিডেন্ট ডেভিড মালপাস বলেছেন, ‘বিশ্বব্যাংক ধারণা করছে, করোনার কারণে সারাবিশ্বের জিডিপি ৫ শতাংশ কমে যেতে পারে।’

বিজ্ঞাপন

‘‘এরই মধ্যে কয়েক কোটি মানুষ চাকরি হারিয়েছেন। বন্ধ হয়ে গেছে বহু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। দরিদ্র দেশগুলো এতে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। লাখ লাখ জীবিকা ধ্বংস হয়ে গেছে। বিশ্বজুড়ে চাপে রয়েছে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা।’’

মঙ্গলবার সতর্ক করে তিনি বলেন, ‘আমাদের ধারণা সারাবিশ্বে ৬ কোটি মানুষ অতি দরিদ্রে পতিত হবে। যা দারিদ্র্য দূরীকরণে বিশ্বের দরিদ্রতম দেশগুলোর গত তিন বছরে প্রচেষ্টাকে নিশ্চিহ্ন করে ফেলবে।’

বিশ্বব্যাংকের ‘চরম দারিদ্র্য’ বলতে ওই মানুষকে বুঝানো হয়, যিনি প্রতি দিন ১ দশমিক ৯০ ডলারেরের (১৬১ টাকা) চেয়ে কম অর্থে জীবনযাপন করেন।

বিজ্ঞাপন

বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট আরও জানান, দরিদ্র দেশগুলোকে এই সংকট মোকাবিলা করতে স্বল্প সুদে ১৬০ বিলিয়ন ডলার আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়েছে। ১০০ টি দেশের জন্য ইতোমধ্যে জরুরি অর্থ ছাড় করা হয়েছে। বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ৭০ ভাগই এই দেশগুলোতে বসবাস করে। এই অর্থ স্বাস্থ্যসেবাকে আরো গতিশীল করার পাশাপাশি চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহে ব্যয় করা হচ্ছে।

তবে এই ১৬০ বিলিয়ন ডলার এই সংকটে পর্যাপ্ত নয় বলে মনে করেন মালপাস।

তিনি বলেন, বিশ্বের দরিদ্রতম দেশগুলোর জন্য ‘ঋণ সেবা স্থগিতকরণ উদ্যোগে’ অংশ নিতে বাণিজ্যিক ঋণদাতাদের অনীহা দেখে তিনি হতাশ হয়ে পড়েছিলেন।

ঋণ পরিশোধের বিষয়টি গত মাসে উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর সংগঠন জি-২০ এর বৈঠক থেকে ঘোষণা করা হয়েছিল।

তিনি বলেন, হতাশার বিষয় হলো- এখনো বাণিজ্যিক ঋণ দাতারা গরীব দেশগুলো থেকে ঋণের অর্থ আদায় করছেন।