চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনার ১৫০তম দিনে কোন পথে বাংলাদেশ?

মার্চে দেশে করোনা সংক্রমণের শুরু থেকেই পরীক্ষা বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দিয়ে আসছেন বিশেষজ্ঞরা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও সংক্রমণ মোকাবিলায় বেশি বেশি পরীক্ষা বাড়ানোর কথা বলে আসছে।

দেশে করোনা সংক্রমণের ১৫০ দিনে গত ২৪ ঘণ্টায় ৮ হাজার ১২৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয়েছে ৭ হাজার ৭১২টি। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো ১২ লাখ ১ হাজার ২৫৬টি। নমুনা পরীক্ষার তুলনায় গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ২৪ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

দেশে এপর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৪৪ হাজার ২০ জন। ১৫০ তম দিনে আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন আরও ৫০ জন। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৩ হাজার ২৩৪-এ।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

পাশ্বর্বতী দেশ ভারতে বর্তমানে করোনার সর্বোচ্চ অবস্থা বিরাজ করছে। সারাবিশ্বের মধ্যে তৃতীয় সর্বোচ্চ সংক্রমণে অবস্থান করছে তারা। ভারতের কিছু রাজ্যে চরম আকারের সংক্রমণ প্রতিরোধে লকডাউন কঠোর করা হয়েছে। পরিবেশ ও জীবনাচরণের দিক থেকে বাংলাদেশ ও ভারতের মানুষের খুব একটা পার্থক্য নেই বললেই চলে। সেহিসেবে দেশে অতিরিক্ত সর্তকতা প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি।

করোনার পরীক্ষা একসময় ২০ হাজারের কমবেশি হলেও বর্তমানে গত কয়েকমাস হলো ১০ হাজারের আশেপাশে পরীক্ষা হচ্ছে। পরীক্ষা কমার কারণ হিসেবে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যানুসারে, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রিত করার পেছনে বেশ কিছু কারণ রয়েছে। রোগী শনাক্ত বাবদ ব্যয় কমানো, পরীক্ষার কিটের স্বল্পতা, সরকারি পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোর ওপর চাপ কমানো, অপরীক্ষিত নমুনার জট না রাখা, অপ্রয়োজনে উপসর্গহীন ব্যক্তির পরীক্ষা বন্ধ করা অন্যতম।

পরিস্থিতি বা প্রেক্ষাপট যাইহোক করোনা পরীক্ষা বাড়ানো উচিত বলে আমরা মনে করি। এছাড়া ব্যাপক আকারে স্বল্প ব্যয়ে এন্টিবডি পরীক্ষার বিষয়ে সরকার দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে পারে, যাতে করে বিরাট সংখ্যক জনগণের স্বাস্থ্য ও ঝুঁকি নির্ণয় সহজ হয়। ঈদের ছুটিতে দেশের সব জেলায় জনগণের যাতায়াত বেড়ে যাওয়ার ফলে জেলায় জেলায় ঝুঁকি বেড়েছে, সেদিকেও খেয়াল করা প্রয়োজন। আমাদের আশাবাদ, সংশ্লিষ্ট সকলে এ বিষয়ে নজর দেবেন।