চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনার ভারতীয় ধরন শনাক্তে শঙ্কা

করোনাভাইরাস দিন দিন যেন চরিত্র বদল করে ক্রমেই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে। এমনই তাণ্ডবে প্রতিবেশী দেশ ভারত সম্পূর্ণ বিপর্যস্ত। সেই অবস্থা থেকে উত্তরণে ভারতের জন্য প্রার্থনার মধ্যেই বাংলাদেশের জন্য এক দুঃসংবাদ এলো। দেশে ইতোমধ্যে কোভিডের ভারতীয় ধরন শনাক্ত হয়েছে।

শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক বলেছেন: ভারত থেকে যশোরে আসা ৮ জনের মধ্যে ২ জনের শরীরে করোনার ভারতীয় ধরন পাওয়া গেছে। এছাড়া ৪ জনের শরীরের ভাইরাসের সাথের ভারতীয় ধরনের সাদৃশ্য আছে। তারা চিকিৎসাধীন। কারো অবস্থায়ই মারাত্মক নয়।

বিজ্ঞাপন

তবে তাদের কন্ট্রাক্ট ট্রেসিং করা হয়েছে এবং তারা কোয়ারেন্টাইনে আছেন বলেও জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক। এমন খবর জানিয়ে তিনি স্বাস্থ্যবিধি মানাসহ সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। এ আহ্বান যুক্তিসঙ্গত বলেই আমরা মনে করি।

এমন অবস্থার মধ্যেও ঘরমুখো মানুষের ঢল দেখা যাচ্ছে সড়ক, মহাসড়ক আর ফেরিঘাটগুলোতে। এটা ঠিক যে, ঈদে পরিবার পরিজন নিয়ে আনন্দ উৎসব করা আমাদের অন্যতম প্রধান সংস্কৃতি। তবে এখন মহামারির দুর্যোগকালও আমাদের মাথায় রাখতে হবে। নাহলে ভারতীয় ধরন আমাদের ভোগান্তির কারণ হবে বলেই শঙ্কা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা বলেছেন: ‘ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। সবাইকে এটি নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত।’ এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ বিষয়ে শঙ্কার কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেছেন: ‘ঈদকে সামনে রেখে যেভাবে মানুষজন তাদের শিশুসন্তানদের নিয়ে দোকানপাটে ভিড় করছেন, ফেরিঘাটে যে হারে মানুষজন যাচ্ছেন তাতে কোনোভাবেই স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে আমাদের দেশে ভারতের চেয়েও খারাপ অবস্থা হবে।’ তাদের এসব বক্তব্যকে কোনভাবেই উড়িয়ে দেয়া যায় না।

এজন্য ভারতের চেয়েও খারাপ অবস্থা হওয়ার আগেই আমাদের আরও বেশি সচেতন হতে হবে। এ বিষয়ে আরও কৌশলী এবং কঠোর হতে আমরা সরকারের সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

বিজ্ঞাপন