চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনাভাইরাস পরবর্তী দুর্ভিক্ষ মোকাবেলায় সতর্কতা জরুরি

করোনাভাইরাস এখনও পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না আসলেও বিশ্বব্যাপী এর তাণ্ডব কিছুটা হ্রাস পেয়েছে। বাংলাদেশে আক্রান্ত শনাক্তের ধারা এখনও অব্যাহত রয়েছে।  বৃহস্পতিবার ৭০৬ জনের কোভিড ১৯ শনাক্ত হয়েছে বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন হেলথ বুলেটিনে জানানো হয়েছে।  বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় ইতোমধ্যে সীমিত আকারে জনজীবন স্বাভাবিক করার চেষ্টা চলছে।

এরমধ্যেই আবারও দুর্ভিক্ষের বিষয়ে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে বিশ্বে একাধিক দুর্ভিক্ষ দেখা দিতে পারে বলে সতর্কবার্তা দিয়েছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল মার্ক লোকক।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

মার্ক লোকক বলেছেন: করোনাভাইরাস মহামারীর সবচেয়ে ধ্বংসাত্মক প্রভাব পড়বে দরিদ্র দেশগুলোতে। আমরা যদি এখন পদক্ষেপ না নেই, তাহলে সংঘাত, ক্ষুধা ও দারিদ্রতার লক্ষণীয় বৃদ্ধির জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। একাধিক দুর্ভিক্ষের অপচ্ছায়া দেখা যাচ্ছে। আরো বেশি বেশি পদক্ষেপ নিতে হবে।

বিজ্ঞাপন

এই শঙ্কা কোনোভাবেই অমূলক নয়।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও করোনাভাইরাস পরিস্থিতির শুরু থেকেই এ বিষয়ে সতর্ক করছেন। সেই অনুযায়ী নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন। বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরও শঙ্কার কথা বলেছেন।  তিনি বলেছেন: করোনাভাইরাস পরিস্থিতি আগামীতে আরও কঠিন হতে পারে। এজন্য দলের সব নেতাকর্মীকে মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে।

করোনাভাইরাস পরবর্তী দুর্ভিক্ষ মোকাবেলায় দায়িত্বশীলদের এসব নির্দেশনা প্রশংসনীয়। তবে আসন্ন দুর্ভিক্ষ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে হলে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাগুলো যথাযথভাবে এখন থেকেই বাস্তবায়ন করতে হবে। দেশের কোথাও ইঞ্চি পরিমাণ আবাদী জমিও যেন অনাবাদী না থাকে তা নিশ্চিত করতে হবে। এ বিষয়ে প্রচারণা এবং কৃষকসহ সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতার কোনো বিকল্প নেই। এজন্য প্রয়াজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে আমরা সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।