চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনাআক্রান্তের সংস্পর্শে গেলেও কোয়ারেন্টাইন লাগবে না, যদি…

নতুন একটি ট্রায়াল সফল হলে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে গেলেও আইসোলেশনের দরকার হবে না।

ইংল্যান্ডে সরকারি সহযোগিতায় পরিচালিত একটি গবেষণায় করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে গেলে ১০ দিনের কোয়ারেন্টাইনের বদলে ৭ দিন ল্যাটেরাল ফ্লো টেস্ট করা হবে।

যদি ৭ দিনই ফলাফল নেগেটিভ আসে তাহলে তারা তাদের সাধারণ জীবনযাপন চলমান রাখতে পারবে।

৯ মে থেকে ইংল্যান্ডে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা অন্তত ৪০ হাজার মানুষকে এই গবেষণায় অংশ নেওয়ার জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে।

সেলফ আইসোলেশন মানে হলো বাড়িতেই বসবাস করা এবং বাড়ির বাইরে না যাওয়া। এমনকি খাবার বা ওষুধ কিনতে বা ব্যায়াম করতেও না।

নতুন এই গবেষণার অংশ হিসেবে, অংশগ্রহণকারীরা সাত দিন প্রতিদিন সকালে নিজেরাই বাড়িতে এই পরীক্ষা করবেন এবং যে কদিন ফলাফল নেগেটিভ আসবে এবং যতদিন তাদের শরীরে করোনাভাইরাসের কোনো লক্ষণ দেখা না দেবে সে কদিন কোয়ারেন্টাইনের নিয়মাবলী থেকে মুক্ত থাকবেন।

ল্যাটেরাল ফ্লোতে মাত্র ৩০ মিনিটে ফলাফল পাওয়া যায়। এটি পিসিআর টেস্টের থেকে কম সেনসেটিভ। পিসিআর টেস্টে ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করা হয়, ফল পেতে সময় লেগে যায় ২৪ ঘণ্টা।

আশা করা হচ্ছে, এই ট্রায়াল সফল হলে করোনা আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসার পরে সেলফ আইসোলেশনের সময় কমানো দরকার হবে কিনা তার প্রমাণ পাওয়া যাবে।

পাবলিক হেলথ ইংল্যান্ডের ন্যাশনাল ইনফেকশন সার্ভিস ডিরেক্টর প্রফেসর ইসাবেল অলিভার বলেন,  সেলফ আইসোলেশন তাদের জন্য খুবই কঠিন যাদের ঘরে থেকে কাজ করার সুযোগ নেই, যাদের সেরকম কোনো সমর্থন নেই বা অন্যদের থেকে সাহায্য পায় না। এর ফলে আমরা যদি বৃহত্তর স্বাভাবিক অবস্থায় যেতে পারি তাহলে সেটাই হবে বড় পদক্ষেপ।

তিনি যোগ করেন, এই গবেষণায় অনেক বেশি মানুষের অংশগ্রহণ দরকার। কারণ এই সময়ে করোনার সংক্রমণ কম।

যারা ল্যাটেরাল ফ্লো টেস্টে অংশ নিবে তাদের গবেষণার শুরুতে ও শেষে সঠিক ফলাফলের জন্য পিসিআর টেস্ট করা হবে। এমনকি কোনো একদিন পজিটিভ ফলাফল এলেও সেদিন পিসিআর টেস্ট করানো হবে। ফলাফল পজিটিভ এলে তাকে অন্যদের মতোই সেলফ আইসোলেশনে পাঠানো হবে।

যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্ত হয়েছে ৪৪ লাখের বেশি মানুষ আর প্রাণ হারিয়েছে ১ লাখ ২৭ হাজারের বেশি।