চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কক্সবাজারে আবারও দোকান-শপিংমল বন্ধের নির্দেশ

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে কক্সবাজারে আবারও দোকান ও শপিংমল বন্ধ রাখার নিদের্শ জারি করেছে জেলা প্রশাসন। ১৮ মে বিকাল ৪টা থেকে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করা হবে।

রোববার জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন এ সংক্রান্ত একটি গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কক্সবাজারে গত ৫ মে করোনাভাইরাস এর বিস্তার প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সীমিত আকারে জেলার অভ্যন্তরীণ দোকানপাট/শপিংমল শর্ত সাপেক্ষে চালুর সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। কিন্তু গত ৫ দিন মার্কেট ও শপিংমলগুলোতে সরেজমিন পরিদর্শনে প্রতীয়মান হয় যে, মানুষের উপচে পড়া ভিড়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে অসচেতনতা এবং আগত ক্রেতা/বিক্রেতাগণ কর্তৃক সরকার প্রদত্ত শর্ত মেনে চলার বিষয়ে সম্পূর্ণ অবহেলা প্রদর্শনের কারণে শর্তসমূহ যথাযথভাবে প্রতিপালিত হচ্ছে না। ফলে এ জেলায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের হার মারাত্মক আকার ধারণ করছে। এমতাবস্থায় জনসাধারণ তথা কক্সবাজারবাসীর সার্বিক স্বাস্থ্য সুরক্ষা, করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ এবং মৃত্যু ঝুঁকির বিষয় বিবেচনা করে জনপ্রতিনিধি, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতিনিধি, চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি এর প্রতিনিধি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, স্বাস্থ্য বিভাগসহ বিভিন্ন বিভাগের প্রতিনিধিদের সাথে আলোচনাপূর্বক পুনরাদেশ না দেয়া পর্যন্ত জেলা সদরসহ সকল উপজেলা পর্যায়ে দোকানপাট/শপিংমলসমূহ বন্ধ রাখার নির্দেশনা প্রদান করা হলো। এ আদেশ আগামী ১৮ মে সোমবার বিকাল ৪টা হতে কার্যকর হবে।

বিজ্ঞাপন

তবে চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট জরুরী সেবা সার্বক্ষণিক খোলা থাকবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়। এছাড়াও নিত্য দ্রব্যাদির দোকান, কাঁচাবাজার ও অন্যান্য সরকার ঘোষিত পরিসেবাসমূহ পূর্বে জারিকৃত নির্দেশনানুযায়ী বিকাল ৪টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। জরুরী কারণ ব্যতিত রিক্সা/অটোরিক্সা/সিএনজি/মোটরসাইকেলসহ যন্ত্রচালিত সকলযাত্রী পরিবহনের কাজে নিয়োজিত যানবাহন চলাচল বিকাল ৪ টার পর সম্পূর্ণরূপে
বন্ধ থাকবে।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, পণ্য পরিবহন কাজে নিয়োজিত যানবাহন চলাচলে এ আদেশের আওতামুক্ত থাকবে। সকল জনসাধারণ ও ক্রেতা, বিক্রেতা/ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে উপরোক্ত নির্দেশনা মেনে চলার জন্য বলা হয়। অন্যথায় এ আদেশ ভঙ্গকারী সংশ্লি ব্যক্তি/ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।