চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এফডিসিতে মৌসুমীর সঙ্গে দুর্ব্যবহার, পরে ক্ষমা চাইলেন ড্যানিরাজ

আসছে ২৫ অক্টোবর শিল্পী সমিতির নির্বাচন ঘিরে সরগরম এফডিসি। আর এই সরগরমের মাঝেই সেখানে দুর্ব্যবহারের শিকার হলেন সভাপতি পদপ্রার্থী চিত্রনায়িকা মৌসুমী।

চিত্রনায়িকা মৌসুমির সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছেন খল অভিনেতা ড্যানিরাজ। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সোমবার (১৪ অক্টোবর) বিকেলে শিল্পী সমিতির অফিসে এ ঘটনা ঘটে।

বিজ্ঞাপন

নায়িকা মৌসুমী এবার স্বতন্ত্রভাবে সভাপতি পদপ্রার্থী। বিকেলে তাকে শুভেচ্ছা জানাতে শিল্পী সমিতিতে আসেন তার কয়েকজন ভক্ত। এসময় শিল্পী সমিতিতে তাদের প্রবেশ নিয়ে ড্যানিরাজ অশালীন ভাষায় চিৎকার চেচামেচি করেন।

একপর্যায়ে তিনি মৌসুমীকে ধাক্কা মারেন বলেও অভিযোগ ওঠে! এসময় ঘটনাস্থলে মিশা সওদাগর, জয় চৌধুরীসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

চ্যানেল আই অনলাইনকে মৌসুমী ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেন, নির্বাচনী প্রচারণার জন্য এফডিসিতে এসেছিলাম। আমাকে শুভ কামনা জানাতে ফুল নিয়ে আমার এক বড় আপা এবং কয়েকজন এফডিসিতে আসেন। তারা সমিতিতে আমার সাথে সেলফি তুলে চলে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। ঠিক ওই সময়ে ড্যানিরাজ দুর্ব্যবহার করেন। আমার ভক্তদের সাথে বাজে ব্যবহার করেন। তাদের সামনে আমাকে অপমান করেন। আঙুল তুলে আমাকে বলে, ‘হু আর ইউ?’

মৌসুমী আরো বলেন, আমি মৌসুমীকে ড্যানি বলে আমি কে? আসলে তারা চাইছে একটা ঝামেলা বাধাতে। যেনো নির্বাচন বানচাল হয়ে যায়। আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াই। এ সময় সভাপতি মিশা সওদাগরও উপস্থিত ছিলেন। তিনি কিছুই বলেননি।

ক্ষোভ প্রকাশ করে মৌসুমী বলেন, এতদিন ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করে একজন শিল্পীর কাছ থেকে এ ধরনের ব্যবহার আশা করা যায় না।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী ইলিয়াস কোবরা বলেন, যে কেউ যে কাউকে শুভেচ্ছা জানাতে আসতেই পারে। কেউ যদি আমাকে এফডিসিতে ফুল দিয়ে নির্বাচনের জন্য শুভেচ্ছা জানাতে আসে আমি মনে করি সেটা আমার জন্য গর্বের ব্যাপার। সেখানে অন্যজন কেন আপত্তি জানাবে বা এ নিয়ে ঝগড়া-অপমান করবে, এটা কিছুতেই হতে পারে না।

তিনি আরো বলেন, আর ড্যানিরাজের এই আচরণ করার তো কোনো যুক্তিই দেখি না। কারণ সে নির্বাচন করছে না। সে কেন মৌসুমীর মতো অভিনেত্রীকে অপমান করবে? তিনি বলে, আমি ব্যক্তিগত ভাবে লজ্জিত, কারণ মৌসুমীর মতো বড় মাপের একজন আর্টিস্টের সাথে এমন ঘটনা ঘটলো!

এদিকে মৌসুমীকে ধাক্কা দেয়ার বিষয়টি মিথ্যে বলে দাবি করেন সমিতির বর্তমান সভাপতি মিশা সওদাগর। তিনি বলেন, ‘এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। কিছু লোক অনেকক্ষণ ধরে সমিতিতে এসে বসেছিলেন। এটা নিয়েই কিছুটা বিশৃঙ্ক্ষলা দেখা দেয়। আমার সামনে কোনো ধাক্কা দেয়ার ঘটনা ঘটেনি। তবে মৌসুমীকে ‘আপনি কে?’ এমন প্রশ্ন ড্যানি করেছে। এটা ড্যানির বেয়াদবী। একজন শিল্পীর কাছে এমন আচরণ কাম্য নয়।’

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, ঘটনার পর নির্বাচনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার ইলিয়াস কাঞ্চন তাৎক্ষণিকভাবে প্রযোজক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু, শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানকে নিয়ে আলোচনায় বসেন। সেখানে ড্যানিরাজ কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন।

ছবি: নাহিয়ান ইমন

Bellow Post-Green View